নিজেকে সাজান একটু অন্যভাবে

কাজল, লাইনার, লিপস্টিক, ফাউন্ডেশন- এইসব মেকআপ সামগ্রী মহিলাদের সবসময়ের সঙ্গী। মেকআপ ব্যবহার করলে দেখতে সুন্দর লাগে ঠিকই, কিন্তু, আসল সৌন্দর্য হল আপনার নিজস্বতা। প্রেমে পড়ার সময় একজন পুরুষ কিন্তু আপনার মেকআপ করা রূপে ভোলে না। তবে, কী দেখে প্রেমে পড়ে পুরুষ? তার চোখে নিজেকে অপরূপা করে তুলতে কীভাবে সাজাবেন নিজেকে? জেনে নিন-

হাসি
মনভোলানো হাসি দিয়ে আপনি মন জয় করে নিতে পারেন অনেকেরই। তাই, সাজান নিজের হাসিকে। অবাক হচ্ছেন? ভাবছেন হাসিকে আবার সাজানো যাবে কী করে! কীভাবে হাসলে আপনাকে দেখতে সবথেকে সুন্দর লাগে সবার আগে তা জেনে নিন। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে বিভিন্নভাবে হেসে দেখুন। এভাবে, হাসির খুঁতগুলিও চোখে পড়বে। চেষ্টা করুন খুঁত ঢেকে আপনার শ্রেষ্ঠ হাসিটি সকলকে উপহার দিতে।

চাহনি
কাজল পরা চোখ দিয়ে মহিলারা কাবু করেন পুরুষকে। শুধু চোখ নয়, সেই কাজল কালো চোখের চাহনিও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয় কাউকে পাগল করতে। তাই, সাজান আপনার চাহনিকে। আপনার চাহনিই উলটোদিকের মানুষটিকে বুঝিয়ে দেবে অনেক না বলা কথা। যেভাবে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে হাসিকে সাজানো শিখবেন, ঠিক সভাবেই সাজান চাহনিকেও। দেখুন আপনার চাহনিতে যেন বিরক্তি প্রকাশ না পায়। নিজেকে শেখান কীভাবে চাহনির মাধ্যমে অন্যকে মনের কথা বোঝানো যায়।

চুলের কায়দা
অবাক হবেন না। আপনার চুলের কায়দাও দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারে অন্যদের। তাই, প্রতিদিন একই হেয়ারস্টাইল না করে মাঝেমধ্যে আলাদা কিছু করতে পারেন। সাইড পার্টিং করে বিনুনি বা সামনে পাফ করে পনিটেল করলে অন্যরকম লুক পাবেন। এছাড়া, আপনার পছন্দের যে কোনও হেয়ারস্টাইল, যা অন্যের চোখে আপনাকে করে তুলবে অনন্যা, তাও ট্রাই করতে পারেন।

কন্ঠস্বর
কখনও কখনও কন্ঠস্বর শুনে প্রেমে পড়েন অনেকে। চোখে না দেখে, শুধু গলা শুনেই প্রেমে পাগল হন কোনও কোনও পুরুষ। মায়া জড়ানো কন্ঠস্বর শুনেই সেই মহিলাকে নিয়ে বুনে ফেলেন স্বপ্নের জগৎ। তবে, কন্ঠের জাদুতে কাউকে মোহিত করার সম্পূর্ণ কৃতিত্ব মানুষের নিজের নয়। কেউ কেউ জন্ম থেকেই মধুর কন্ঠস্বরের অধিকারী। তবে, রেকর্ড করে নিজের কথা বলার কায়দা বা গলার স্বরের কিছু কিছু ত্রুটি দূর করা সম্ভব। এভাবে সাজাতে পারেন কন্ঠস্বরকে।

বডি ল্যাঙ্গুয়েজ
মুখে কথা না বলেও বডি ল্যাঙ্গুয়েজের সাহায্যে অনেক কিছু বলা সম্ভব। আপনি যখন কারও সঙ্গে কথা বলছেন, তখন আপনার সঙ্গে সঙ্গে কথা বলে আপনার বডি ল্যাঙ্গুয়েজও। বডি ল্যাঙ্গুয়েজ সঠিক না হলে উলটোদিকের মানুষটির উপর তার নেগেটিভ প্রভাব পড়ে। আবার সঠিক বডি ল্যাঙ্গুয়েজই আপনাকে অন্যের চোখে করে তুলতে পারে আকর্ষণীয়। বসা বা দাঁড়ানোর ভঙ্গি, হাত-পা নাড়ার কায়দা, চাহনি ও হাসি ইত্যাদি মিলিয়েই বডি ল্যাঙ্গুয়েজ।  প্রথমে জানুন, বডি ল্যাঙ্গুয়েজের ক্ষেত্রে কোনটি ঠিক, কোনটি ভুল। বডি ল্যাঙ্গুয়েজকে সাজাতে হলে নিজেকে শেখান কোন পরিস্থিতিতে কীভাবে বসবেন, দাঁড়াবেন, হাসবেন, তাকাবেন বা কথা বলবেন।

নিজস্বতা
প্রতিটি মানুষ একে অন্যের থেকে আলাদা। সবার ভিতরেই এমন কোনও বিশেষ চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য থাকে, যা বাকি আর কারোর মধ্যে পাওয়া যাবে না। খুঁজে বের করুন আপনার সেই বিশেষ বৈশিষ্ট্যটি, যা আপনাকে বাকি সবার থেকে আলাদা করতে পারে। চেষ্টা করুন আপনার সেই “ইউনিকনেস”-কে সাজাতে।