ছেলের প্রাণ বাঁচাতে ভিক্ষা করছে রিক্সা চালক বাবা

আজিজুল ইসলাম বারী, লালমনিরহাট: চোখের সামনে ছেলেকে মৃত্যুর যন্ত্রনায় ছটফট করতে দেখে লাজ লজ্বা ত্যাগ করে প্রতিবেশীদের দাঁড়ে দাঁড়ে ছেলের প্রাণ বাঁচাতে হাত পাতে ভিক্ষা করেন রবিউল। এ ভাবে প্রতিবেশী ব্যবসায়ী মন্টু বকসী ও স্কুল শিক্ষক লুৎফর রহমানের সহযোগিতায় মাত্র ৫ হাজার টাকা আদায় করে গত বৃহস্পতিবার শিশু হাফিজুরকে নিয়ে যান রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

সেখানে অর্থপেটিকস্ শিশু বিভাগের ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে পড়ে রয়েছে পঙ্গু হাফিজুর। ফোঁড়া ফেটে গিয়ে পায়ের হাড় খুলে পড়ছে ভুমিহীন রিক্সা চালকের ৭ বছরের শিশু হাফিজুরের। জিবিকার মাধ্যম রিক্সাটি বিক্রি করেও একমাত্র ছেলেকে সুস্থ করতে পারেন নি হতভাগ্য বাবা।

অসুস্থ শিশু হাফিজুর লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার ভাদাই ইউনিয়নের বসিনটারী গ্রামের ভুমিহীন রিক্সা চালক রবিউল ইসলামের ছেলে। স্থানীয় ব্র্যাক শিশু নিকেতনে প্লে শ্রনীর মেধাবী ছাত্র। হাফিজুরের বাবা রবিউল ইসলাম জানান, ২০ দিন আগে বাম পায়ের গোড়ালীতে একটা ফোঁড়া দেখা দেয়। পরদিন তা ফেঁটে গিয়ে পা ফুলে যায়। পঙ্গুত্ব বরন করে শিশু হাফুজুর। এক পায়ে খুড়িয়ে খুড়িয়ে স্কুল যেতে গিয়ে পড়ে ডান ভেঙ্গে যায় হাফিজুরের।

এক মাত্র ছেলেকে বাঁচাতে উপার্জনের মাধ্যম রিক্সাটিও বিক্রি করে ছেলেকে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন রবিউল ইসলাম। কয়েক দিনের চিকিৎসায় রিক্সা বিক্রির টাকা শেষ হলে ঘোর অন্ধকার নেমে আসে রিক্সা চালক বাবা রবিউলের জিবনে। ঠিক সেই সময় চিকিৎসকরা উন্নত চিকিৎসার জন্য শিশু হাফিজুরকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন।

চিকিৎসক রেফার করলেও টাকা না থাকায় বুকের ধন একমাত্র ছেলেকে বাড়িতে নিয়ে আসেন রিক্সা চালক রবিউল। চোখের সামনে ছেলেকে মৃত্যুর যন্ত্রনায় ছটফট করতে দেখে লাজ লজ্বা ত্যাগ করে প্রতিবেশীদের দাঁড়ে দাঁড়ে ছেলের প্রাণ বাঁচাতে হাত পাতে ভিক্ষা করেন রবিউল। এ ভাবে প্রতিবেশী ব্যবসায়ী মন্টু বকসী ও স্কুল শিক্ষক লুৎফর রহমানের সহযোগিতায় মাত্র ৫হাজার টাকা আদায় করে গত বৃহস্পতিবার শিশু হাফিজুরকে নিয়ে যান রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে অর্থপেটিকস্ শিশু বিভাগের ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে পড়ে রয়েছে পঙ্গু হাফিজুর।

সেখানে চিকিৎসকরা জানান শিশু হাফিজুরের আলসার হয়েছে। পা কেটে ফেলতে হবে। অনেক টাকা লাগবে। পা বাঁচাতে চাইলে দ্রুত ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে নিতে হবে। বিলম্ব হলে আলসার মেরুদন্ডের অস্থি মজ্জায় আক্রান্ত হলে তাকে বাঁচানো অসম্ভব হবে বলেও পরিস্কার জানায় চিকিৎসকরা। আবারো ছেলেকে হারানোর হতাশা গ্রাস করল বাবা রবিউলকে। এ বার নিশ্চিত ছেলের মৃত দেখতে হবে তাকে। কে দিবে এত টাকা। কে তাকে পঙ্গু হাসপাতালে নিবে। ছেলের মুখে হাসি দেখতে বারং বার চিকিৎসকদের পায়ে জড়িয়ে পড়েছেন রবিউল। কিন্তু ছেলেকে বাঁচাতে টাকার বিকল্প নেই।

সোমবার (২ অক্টোবর) সকাল থেকে শিশু হাফিজুরের পায়ের মাংস খুলে যায়। এখন খুলে পড়ছে পায়ের হাড়। দীর্ঘ দিন বিছানায় থাকায় বেড় সোড রোগেও আক্রান্ত হয় হাফিজুর। পিঠেও দেখা দিচ্ছে দগদগে ঘাঁ।  যার দুর্গন্ধে কেউ পাশে ভিড়তেও পারছেন না। বাবা রবিউল না পারছেন টাকা জোগার করতে, না পারছেন ছেলেকে ফেলে নিরুদ্দেশ হতে। এখন শুধুই মায়া কান্না। চোখের সামনে দেখতে হচ্ছে ছেলের নিশ্চিত মৃত্যু।

হাফিজুরকে মুখে হাসি স্কুল পাঠাতে সমাজের বিত্তবানদের কাছে সাহায্য চেয়েছেন তার রিক্সা চালক বাবা রবিউল ইসলাম। ভাদাই ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান রোকনুজ্জামান রোকন জানান, রিক্সা বিক্রি করে চিকিৎসা করেও ছেলেকে সুস্থ করতে পারেন নি রিক্সা চালক রবিউল। হাফিজুরকে বাঁচাতে সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি।

প্রয়োজনে- হাফিজুরের প্রতিবেশী মন্টু বকসী – ০১৭৬৫০৫৭৪৮৯।