লিভারপুলের গোল উৎসব, জিতেছে ম্যানসিটিও

গত সেপ্টেম্বরের শুরুতে ম্যানচেস্টার সিটির গোলবন্যায় ভেসে গিয়েছিল লিভারপুল। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ৫-০ গোলে ওই হারের পর দুঃসহ সময়ের মধ্যে যাচ্ছিল ইয়ুর্গেন ক্লপের শিষ্যরা। সব ধরনের প্রতিযোগিতায় এরপর ৭ ম্যাচে মাত্র একটি জয়, বাকি সবগুলোতে ড্র করেছিল তারা।

চ্যাম্পিয়নস লিগের প্রথম দুই ম্যাচেই পয়েন্ট ভাগাভাগি করতে হয়েছে তাদের। অবশেষে তাদের মুখে হাসি ফুটবলো। এনকে মারিবোরের বিপক্ষে মঙ্গলবার চ্যাম্পিয়নস লিগে গোল উৎসব করেছে লিভারপুল, তারা জিতেছে ৭-০ গোলে। আরেক ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ ক্লাব ম্যানচেস্টার সিটি হারিয়েছে নাপোলিকে।

মারিবোরের মাঠে মাত্র ১৯ মিনিটে ৩-০ গোলে এগিয়ে যায় লিভারপুল। ৪ মিনিটে রবার্তো ফিরমিনিয়ো গোলমুখ খোলেন। ফিলিপ কৌতিনিয়ো ১৩ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। তৃতীয় গোল করেন মোহাম্মদ সালাহ। ৩৯ মিনিটে নিজের দ্বিতীয় ও দলের চতুর্থ গোল করেন মিশরীয় এ ফরোয়ার্ড। এ গোলেই ইউরোপীয় রেকর্ড গড়ে অল রেডরা। ইউরোপীয় মঞ্চে প্রথম কোনও দল প্রতিপক্ষের মাঠে গিয়ে প্রথমার্ধেই চার গোল করলো।

ওখানেই থেমে থাকেনি লিভারপুল। বিরতির পর নিজের দ্বিতীয় গোল করেন ফিরমিনিয়ো। স্কোরশিটে আরও নাম লিখেছেন অক্সলেইড-চেম্বারলেইন ও আলেক্সান্দার আর্নল্ড। ইউরোপে এটাই প্রতিপক্ষের মাঠে সবচেয়ে বড় জয়।

‘ই’ গ্রুপে নিজেদের প্রথম জয়ে শীর্ষে উঠেছে লিভারপুল। তিন ম্যাচে তাদের পয়েন্ট ৫। এই গ্রুপের অন্য ম্যাচেও গোল উৎসব করেছে স্পার্তাক মস্কো। রাশিয়ান দলটি ৫-১ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে সেভিয়াকে। দুই ম্যাচ শীর্ষে থাকা সেভিয়া এই হারে ৪ পয়েন্ট নিয়ে নেমে গেছে তিন নম্বরে। লিভারপুলের সমান ৫ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে মস্কো।

দিনের আরেক ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ইংল্যান্ড ও ইতালিয়ান ফুটবলের শীর্ষ দুই দল ম্যানসিটি ও নাপোলি। মাত্র ১৩ মিনিটে দুই গোল করে আবারও বড় ব্যবধানে জয়ের আভাস দিয়েছিল সিটিজেনরা। কিন্তু রহিম স্টারলিং ও গ্যাব্রিয়েল হেসুসের ওই গোলের পর আর প্রতিপক্ষের জালে বল পাঠাতে পারেনি পেপ গার্দিওলার শিষ্যরা। বরং ইতিহাদ স্টেডিয়ামে ৭৩ মিনিটের পেনাল্টি থেকে একটি গোল শোধ দিয়ে ম্যাচে উত্তেজনা ফেরান দিয়াওয়ারা।

তবে সমতা ফেরাতে পারেনি ইতালিয়ান শীর্ষ দল। ২-১ গোলের জয় নিয়ে ‘এফ’ গ্রুপের ৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থাকলো ম্যানসিটি। গ্রুপের আরেক ম্যাচে শাখতার দোনেৎস্ক ২-১ গোলে হারিয়েছে ফেনুর্দকে। এ জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে উঠে এসেছে শাখতার।