রেসিপি : ইলিশের রোস্ট

মাছের মধ্যে ইলিশের স্বাদ অনন্য, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ইলিশের হরেক রকমের পদ, তা শুধু আমাদের দেশেই হয়। আর ইলিশটা যদি হয় পদ্মার তা হলে তো কথাই নেই। তাই আসুন আজ ইলিশ দিয়েই হোক ভুরিভোজ…।

উপকরণ :ইলিশ- ৮০০/৯০০ গ্রাম সাইজের

পোস্তদানা বাটা- ২ চা চামচ

পেঁয়াজ বাটা- ৫ টেবিল চামচ

রসুন বাটা- ১ চা চামচ

রোস্টের মশলা- ১ চা চামচ

মিষ্টিদই- ৩ টেবিল চামচ

টকদই- আধা কাপ

চিনি- ১ চা চামচ

কিসমিস- ১/৩ কাপ

এলাচ, দারচিনি, লবঙ্গ, তেজপাতা- ২ টুকরো করে

হলুদ গুঁড়ো- আধা চা চামচ

মরিচ গুঁড়ো- ১ চা চামচ

জিরা গুঁড়ো- ১ চা চামচ

লবণ- পরিমাণমতো

সরিষার তেল- ১ কাপ

কাঁচা মরিচ- পছন্দ মতো

পেঁয়াজ বেরেস্তা- ২ টেবিল চামচ

যেভাবে করবেন :

ইলিশের আঁশ ছাড়িয়ে পরিষ্কার করে নিন। পেট টা সামান্য কাটবেন, ভেতরে ডিম থাকলে তা বের করে নিন।মাছের মাথাটা আস্তই থাকবে, তবে মাথার ভেতরটা সাবধানে পরিষ্কার করে নিতে হবে।এবার আস্ত ইলিশের দুপাশে ছুরি দিয়ে হালকা করে তিনটি দাগ কেটে নিন। এর ফলে মাছের ভেতরে মসলা ঢুকবে। এবার তেল, কিসমিস, গরম মশলা, কাঁচা মরিচ, পেঁয়াজ বেরেস্তা ও চিনি বাদে বাকী সব উপকরণ মাছের গায়ে মাখিয়ে রাখুন। এভাবে ৩০ মিনিট মেরিনেট করে রেখে দিন।

রান্নার জন্য ছড়ানো পাত্র নিতে হবে, মাছটা যেন ভেঙ্গে না যায়। আপনি চাইলে সিলভারের ডিশ ও ব্যবহার করতে পারেন।যাহোক, পাত্রে সরিষার তেল দিন, তেল গরম হলে মেরিনেট করে রাখা মাছ, মসলা সহ পাত্রে দিন। একপিঠ সামান্য ভাজা হলে সাবধানে উলটে নিন। একটু ভেজে পরিমাণ মতো পানি দিন। পানি গরম করে নিলে ভালো হয়। পাত্রটি দুপাশে ধরে নেড়ে দিন, যেন মশলা পানির সাথে ভালভাবে মিশে যায়।গরম মশলা গূলো দিয়ে দিন।

কিছুক্ষণ এভাবে রান্না করে ইলিশটা আবার উলটে দিন। খুব সাবধানে যেন মাছ ভেঙ্গে না যায়। মশলা ভালভাবে কষে এলে তাতে কিসমিস, চিনি ও কাঁচামরিচ দিন। কাঁচামরিচ, ফালি বা কুচি করবেন না, শুধু মাঝখানে দু টুকরো করে নিলেই হবে। মাছটা আর একবার উল্টে নিন।এবার পেঁয়াজ বেরেস্তা ছড়িয়ে নামিয়ে নিন। ও লবণটা চেখে দেখতে ভুলবেন না।পোলাওয়ের সাথে পরিবেশন করুন গরম গরম ইলিশ রোস্ট।