চলচ্চিত্র পরিচালনা আমার স্বপ্ন : শাবনূর

বাংলা চলচ্চিত্রের অন্যতম নায়িকা শাবনূর। প্রায় দুই দশক ধরে অভিনয় গুণে মাতিয়ে রেখেছিলেন ভক্তদের। তারপর হঠাৎ করে হাওয়া হয়ে যান। দীর্ঘ বিরতি দেন চলচ্চিত্র থেকে। উড়াল দেন অস্ট্রেলিয়া। তার শুন্যতায় ভক্ত হৃদয়ে শুরু হয় হাহাকার। সিনেমার চঞ্চলা চপলা প্রেমিকা শাবনূর হয়ে উঠেন ভক্ত দর্শকদের স্বপ্নের রানী। দীর্ঘ ৫ বছর পর ১২ জানুয়ারি শুক্রবার তার অভিনীত সর্বশেষ চলচ্চিত্র ‘পাগল মানুষ’ মুক্তি পাচ্ছে। আর মুক্তি উপলক্ষে তিনি হাজির হয়েছিলেন ছবিটির সংবাদ সম্মেলনে। সেখানেই তার সঙ্গে কথা হয়।

দীর্ঘ বিরতির পর সামনে আসলেন, কেমন লাগছে?

শাবনূর: অনেক ভালো। সবাইকে একসঙ্গে দেখতে পাচ্ছি এটি অনেক আনন্দের। নানা কারণে আমি কাজ শুরু করতে পারি নাই। বলা যায় অসুস্থও ছিলাম অনেক দিন। এই যে এখনো ভালো নেই। কথা বলতে কষ্ট হচ্ছে। ঠান্ডায় গলা বসে গেছে। তবে আমি সবাইকে বলবো আমি মিডিয়ার মানুষ। তাই চলচ্চিত্রের বাহিরেতো আর থাকতে পারি না। চলচ্চিত্রকে মনে প্রাণে ভালোবাসি। চলচ্চিত্রই আমার সব।

আপনার সর্বশেষ ছবি মুক্তি পাচ্ছে, এ সম্পর্কে কিছু বলুন?

শাবনূর: আমি খুবই খুশি যে অনেক দেরিতে হলেও ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে। মান্নান আঙ্কেল অনেক যত্ন দিয়ে ছবিটি নির্মাণ করেছিলেন। কিন্তু কাজ শেষ না হতেই তিনি মারা যান। তিনি মারা যাওয়ার পর কিছুটা জটিলতা তৈরি হয়। কিন্তু শাহের খান এটার জন্য অনেক চেষ্টা করেছে। পরবর্তীতে বদিউল আলম খোকন ভাই এই ছবির কাজ সম্পন্ন করেন। এখন মুক্তি পাচ্ছে তাই অনেক ভালো লাগছে। আমি বলবো যে এই ছবির গল্প অনেক সুন্দর।

বর্তমানে কি নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন?

শাবনূর: এখন সংসার নিয়েই ব্যস্ত আছি। আমার বাচ্চাটা অনেক ছোট। তাকে সময় দিতে হয়। সে আরেকটু বড় হলে তখন কাজের চিন্তা করার সুযোগ পাবো। তবে দীর্ঘ দিন পর আমার ছবি পর্দায় আসছে। আমার ভক্ত দর্শকদের বলবো আপনারা হলে গিয়ে ছবিটি দেখবেন। যদিও এখন চলচ্চিত্রের অবস্থা মন্দা। এরপরও বলবো আপনারা আসবেন। ছবিটি দেখবেন। আমি জানি আপনারা আমাকে ভালোবাসেন। আপনাদের ভালোবাসা দিয়েই আমি সামনে আরো কাজ করতে চাই।

আগামীতে কি ধরণের কাজ করতে চাচ্ছেন?

শাবনূর: আমার স্বপ্ন হলো ছবি পরিচালনা করা। তাই সে জন্য নিজেকে প্রস্তুত করছি। বর্তমানে আমার মা অস্ট্রেলিয়া রয়েছে। তিনি সেখান থেকে ফিরলে শিগগিরই কাজ শুরু করবো। আর ছবি প্রযোজনারও ইচ্ছে আছে। সময় সুযোগ হলে চলচ্চিত্র প্রযোজনায় কাজ করবো। এগুলো আমার স্বপ্ন। এখন স্বপ্ন পূরণে যদি দেরিও হয়, তাতে আমি অসুবিধে মনে করছিনা। একদিন বাস্তবায়ন করবো। সে লক্ষেই নিজেকে প্রস্তুত করছি। রাতারাতি সব কিছু হয়ে যাবে মনে করছি না। তবে চলচ্চিত্র পরিচালনা করবো। এটা আমার দীর্ঘ দিনের ইচ্ছা।

টিভি নাটকে অভিনয় করার ইচ্ছে আছে কি না?

শাবনূর: একেবারেই না। আমি সিনেমার মানুষ, সিনেমাতেই থাকতে চাই। হ্যাঁ অনেকে ছোট পর্দায় কাজ করছে। এটাকে আমি খারাপ চোখে দেখি না। যে কেউ নিজের ইচ্ছেকে প্রাধান্য দিতে পারে। কিন্তু আমি চলচ্চিত্রের বাহিরে যেতে চাই না। আমার কখনো আগ্রহ হয়নি টিভি নাটকে কাজ করার। তাই পুরোপুরি সিনেমাতেই থাকতে চাই।

এই ছবিতে একজন নতুন হিরোর সঙ্গে কাজ করেছেন, কেন?

শাবনূর: নতুনদের সঙ্গে কাজ করলেতো আর সমস্যা নেই। আর এ ছবিতে কাজ করার কারণ হলো এর পরিচালক। তিনি অনেক বড় মাপের একজন ডিরেক্টর। তার সব সিনেমাই হিট। সুতরাং একজন নামি পরিচালক যদি নতুন হিরো নেন এখানে আমারতো কোনো সমস্যা থাকতে পারে না। কারণ তিনিই এর ভালো বুঝেন। আর এই ছবির ক্ষেত্রে সমস্যা হলো পরিচালক মারা যাওয়ায়। তিনি না থাকায় এই ছবির সব কিছু বন্ধ হয়ে যায়। এখন বদিউল আলম খোকন ভাই’র চেষ্টায় ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে। এর নায়ক শায়ের খান অনেক ভালো একজন অভিনেতা। একসময় শাকিব খানও নতুন ছিল। তার সঙ্গেও অভিনয় করেছি। আজকে সে সুপারস্টার। সুতারং শায়ের খানও ভালো করতে পারে। এটা ভাগ্যের ব্যাপার। তবে শুরুতেই তার ভাগ্যটা একটু খারাপ। পরিচালকের মৃত্যুতে তার কাজ পিছিয়ে যায়।

দর্শকদের উদ্দেশ্য আপনার কিছু বলার আছে কি-না?

শাবনূর: দর্শকদের উদ্দেশ্য আমি বলবো, অনেক দিন পর আমার ছবি হলে আসছে। আপনারা ছবিটি দেখতে যাবেন। অনেক ভালো একটি গল্পের ছবি। দীর্ঘ দিন বিরতির পর আবার পর্দায় ফিরছি এটি অনেক আনন্দের। মাঝখানের এই দিনগুলো নানা সমস্যায় পার হয়েছে। সামনে আমি আবার আপনাদের কাছে আসতে চাই। আপনারা আমাকে ভালোবাসেন। আপনাদের ভালোবাসায় আমি শাবনুর হতে পেরেছি। আশা করি সুন্দর এই ছবিটি আপনারা উপভোগ করবেন।-একুশে টেলিভিশন