অতিরিক্ত ঘুম অকাল মৃত্যুর কারণ !

ঘুম কম হলে শরীরের জন্য খারাপ। কিন্তু ঘুম বেশি হলেই যে শরীরের জন্য ভালো এটা মনে করার কোনো কারণ নেই। একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের দৈনিক সাত থেকে নয় ঘণ্টা ঘুমানো প্রয়োজন। এটা আবার মানেষের বয়সের সাথে কম বেশি হয়ে থাকে। প্রতিদিন নয় ঘণ্টার বেশি ঘুমালে বুঝতে হবে, আপনার শরীরে কোনো সমস্যা লুকায়িত আছে। এছাড়াও, এটি আপনার সমগ্র স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

এখানে, অতিরিক্ত ঘুম যে সমস্ত স্বাস্থ্য ঝুঁকি হতে পারে, তা আলোচনা করা হল।

ওজন বৃদ্ধি পেতে পারে: গবেষকদের মতে, অতিরিক্ত ঘুম ছয় বছরের মধ্যে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে শরীরের ওজন বৃদ্ধির প্রবণতা দেখা যায়। অতিরিক্ত ঘুম ও অল্প ঘুমের কারণে শরীরের ওজন বৃদ্ধি পায়। যারা ৯ থেকে ১০ ঘণ্টা ঘুমিয়েছিল গবেষণার সময় তাদের ওজন ২৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।
গবেষণার সময়কাল শেষ হবার পর তার ওজন ৫ কেজি বৃদ্ধি পায়।

তারা শরীর পরিচর্যা ও ডায়েট করার পরও তাদের ওজন বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই, তাদের মতে ঘুম স্থূলতা ও ওজন বৃদ্ধিতে প্রবল ভূমিকা রাখে।

বিষণ্ণতার ঝুঁকি বাড়তে পারে: ২০১৪ সালে প্রাপ্তবয়স্ক যুগলের উপর দীর্ঘ সময় গবেষণা করে জানতে পেরেছেন, অতিরিক্ত ঘুম বিষণ্ণতার সৃষ্টি হয়। গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে যারা ৭ থেকে ৯ ঘণ্টা ঘুমিয়েছে, তাদের মাঝে বিষণ্ণতার পরিমাণ ছিল ২৭ শতাংশ এবং যারা ৯ ঘণ্টার বেশি সময় ঘুমিয়েছেন, তাদের মাঝে বিষণ্ণতার পরিমাণ ছিল ৪৯ শতাংশ।

২০১২ সালের আরেকটি গবেষণায় দেখা যায়, বৃদ্ধ মহিলাদের জন্য অতিরিক্ত ঘুম মস্তিষ্কের সমস্যা বৃদ্ধি করে। অতিরিক্ত ঘুম প্রতি দুই বছরে তাদের মস্তিষ্কের ঘিলুর পরিবর্তন প্রদর্শিত হয়।

গর্ভধারণে সমস্যা হওয়া: ২০১৩ সালে কোরিয়ার গবেষণা দল ৬৫০ জন মহিলা নিয়ে ভিট্রো ফার্টিলাইজেশনের মাধ্যমে তাদের ঘুম নিয়ে গবেষণা করেন। তারা তাদের গবেষণায় দেখতে পান, যেসকল মহিলারা ৭ থেকে ৯ ঘণ্টা নিয়মিত ঘুমান, তাদের গর্ভধারণের রেট বেশি তবে যারা ৯ ঘণ্টার বেশি সময় ঘুমান তাদের গর্ভধারণে সমস্যা হতে পারে।

তাদের মতে, ঘুমের অভ্যাস অবশ্যই সার্কাডিয়ান রিদম, হরমোন secretions এবং মাসিক চক্র পরিবর্তন করতে পারেন। এছাড়াও, অতিরিক্ত ঘুমের ফলে ডায়াবেটিসের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে।

হার্টের জন্য ক্ষতিকর: ২০১২ সালের আমেরিকান কলেজ কার্ডিওলজি সভায় অতিরিক্ত ঘুমের কারণে হার্টের বিভিন্ন সমস্যা হয় এ বিষয়টি উপস্থাপিত করা হয়। গবেষকরা ৩০০০ মানুষকে নিয়ে গবেষণা করে দেখতে পান যে, অতিরিক্ত ঘুম কণ্ঠনালীপ্রদাহ ও আর্টারি ডিজিজ এর ঝুঁকি দুই গুণ বৃদ্ধি পায়। যা মৃত্যুর কারণও হতে পারে।

অতিরিক্ত ঘুম ও সল্প ঘুম উভয়ই স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ। ১৩,৮২,৯৯৯ জন অংশগ্রহনকারীকে নিয়ে বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যায়, আট ঘণ্টার বেশি ঘুমানোর ফলে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার সৃষ্টি হয়। তাই, পরিমিত ও পর্যাপ্ত ঘুমানোর চেষ্টা করুন।