টি-টোয়েন্টির কিপিংও ছাড়তে হচ্ছে মুশফিককে!

টেস্টে এখন আর তিনি বাংলাদেশের প্রথম পছন্দের উইকেটরক্ষক নন। লিটন দাস সামলাচ্ছেন সে দায়িত্ব। তবে ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্টিতে তার জায়গায় এতোদিন কাউকে ভাবেনি বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট। এবার বোধহয় সেই ভাবনা এসে গেলো। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আসন্ন দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে উইকেটের পিছনে মুশফিককে নাও দেখা যেতে পারে, ছাড়তে হতে পারে টি-টোয়েন্টির কিপিংও!

টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডে প্রথমবারের মতো সুযোগ পেয়েছেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জাকির হাসান। ২০১৬ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের এই উইকেটরক্ষক গত বিপিএলেও উইকেটের পিছনে দারুণ করেছেন। এ ছাড়া তার ব্যাটটাও চলে সমানভাবে। সব মিলিয়ে মুশফিকের উত্তরসূরী হিসেবে এখনই তাকে ভাবনায় রাখছে বিসিবি।

টি-টোয়েন্টি সিরিজে মুশফিককে উইকেটের পিছনে দেখা যাবে কিনা— এই প্রশ্ন বড় হয়ে উঠছে গত দুদিনের অনুশীলনে। মুশফিকের হাতে অনুশীলনে গ্লাভস দেখা গেছে বটে, কিন্তু কোচদের তার চেয়ে বেশি ব্যস্ত দেখা গেছে জাকিরের সঙ্গে। কিপিং অনুশীলনে নজর কাড়ার মতোই ছিলেন তিনি।

মুশফিকুর রহিম এখন পর্যন্ত মোট ৬১টি টি-টোয়েন্টি খেলেছেন। এর মধ্যে মাত্র চারটিতে উইকেটের পিছনে দাঁড়াননি তিনি। ২০১৬ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুই ম্যাচে এবং শ্রীলঙ্কা ও আরব আমিরাতের বিপক্ষে দুটি ম্যাচে তিনি ছিলেন সাধারণ ফিল্ডার।

উইকেট কিপিং ছেড়ে দিলে মুশফিক হয়ে উঠতে পারেন আরো কার্যকর ব্যাটসম্যান- এ ধরনের কথা উঠে প্রায়ই। এ বিষয়ে একাধিকবার সংবাদ মাধ্যমে কথা বলেছেন মুশফিক নিজেও। তবে তিনি কখনোই বলেননি যে, কিপিং ছাড়লে আসলেই ব্যাটসম্যান হিসেবে তিনি আরো কার্যকর হয়ে উঠতে পারেন। মুশফিক বরং বলেছেন, ব্যাটিং ও কিপিং দুটোই সমান উপভোগ করেন তিনি।