ফেনীতে প্রেমিকের হাতে প্রেমিকা খুন

ফেনীতে শিরিন সুলতানা রত্না নামের (১৬) এক এসএসসি পরিক্ষার্থীকে জবাই করে হত্যা করেছে তার প্রেমিক ।গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শহরের নাজির রোড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ ও রক্তমাখা ছুরি উদ্ধার করেছে ।

এছাড়া স্থানীয়রা রক্তাক্ত অবস্থায় ঘাতক প্রেমিক বিপ্লবকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে। নিহত শিরিন ফরহাদ নগর ইউনিয়নের সুলতান পুর গ্রামের সৌদি প্রবাসী আনিসুল হকের মেয়ে। সে শহরের পৌর বালিকা বিদ্যা নিকেতন থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল।

পুলিশ জানায়, শহরের বারাহিপুর এলাকার আনোয়ার উল্যাহ সড়কের সুলতান হক ম্যানশানের ৫তলা বিল্ডিং এর তৃতীয় তলায় একটি ঘরে মায়ের সাথে থাকতো এসএসসি পরীক্ষার্থী শিরিন সুলতানা রত্না। বৃহস্পতিবার বিকেলে মা সালমা আক্তার এক আত্নীয়ের বাড়িতে গেলে মেয়ে রত্না বাসায় একা ছিলো। ওই বাড়ির চতুর্থ তলার ভাড়াটিয়ার ঘরে থাকা বিপ্লব নামে এক যুবককে সন্ধ্যায় মেয়েটির ঘর থেকে বের হতে দেখে অপর বাসার বাসিন্দারা।

এসময় ছেলেটির শার্টে রক্তের দাগ দেখতে পেয়ে তারা তাকে আটক করে। পরে ফ্লাটের অপর বাসিন্দারা মেয়েটির ঘরে ঢুকলে বিছানার উপর রত্নার গলাকাটা রক্তাক্ত দেহ পড়ে থাকতে দেখে। পরে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফেনী সদর হাসপতাল মর্গে প্রেরণ করে। প্রাথমিক জিঙ্গাসাবাদে বিপ্লব পুলিশের কাছে হত্যার দায়স্বীকার করে বলেছে রত্নার সাথে তার দেড় বছরের প্রেমের সম্পর্ক ছিল।

তাদের মধ্যে কোন কারনে মান অভিমান হয়। এরপর বিপ্লব দোকান থেকে ছুরি কিনে এনে তা দিয়ে রত্নাকে হত্যা করে। ফেনী মডেল থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রাশেদ খান চৌধুরী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে বিপ্লবকে হত্যায় ব্যবহৃত ছুরিসহ আটক করা হয়েছে।