মুসলিমদের ওপর সহিংসতার ঘটনায় সরব লঙ্কান ক্রিকেটাররা

শ্রীলঙ্কার ক্যান্ডিতে মুসলিমদের ওপর হামলা ও সহিংসতা ঠেকাতে আরো সেনা নিয়োজিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির সরকার। পুলিশ দাঙ্গা থামাতে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের হামলাকারীদের লক্ষ্য করে টিয়ারগ্যাস ছোড়ে।

সংখ্যাগুরু বৌদ্ধ সিনহালারা বিভিন্ন মসজিদ এবং মুসলিমদের মালিকানাধীন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়েছিল। মুসলমানদের সাথে বিবাদকে কেন্দ্র করে একজন বৌদ্ধ তরুণের মৃত্যুর খবরে তারা কারফিউ উপেক্ষা করে এসব হামলা চালায়।

মসজিদ ও মুসলমানদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের উপর একের পর এক হামলার পর দেশটিতে জরুরী অবস্থা ঘোষণা করা হয়। পরে কারফিউর মেয়াদও বাড়ানো হয়। দেশটির কর্তৃপক্ষ সামাজিক মাধ্যম ব্লক করে দিয়েছে।

এই দাঙ্গার ঘটনাকে ঘিরে সরব হয়েছেন দেশটির সাবেক ক্রিকেটাররা। সাবেক ক্রিকেট অধিনায়ক কুমার সাঙ্গাকারা টুইট বার্তায় এ ধরনের সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানিয়ে লিখেছেন, শ্রীলঙ্কায় জাতিগত বা ধর্মীয় অবস্থানের কারণে কোনো মানুষ হামলা বা হুমকির শিকার হতে পারেনা।

সেখানে বর্ণবিদ্বেষ বা সহিংসতার কোনো স্থান নেই। সবাইকে জোরালোভাবে একে অন্যের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান তিনি।

সাঙ্গার তীর্থ এবং আরেক সাবেক অধিনায়ক মাহেলা জয়াবর্ধনে টুইট বার্তায় বলেন, ‘ আমি সাম্প্রতিক সহিংসতার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই এবং এর সঙ্গে জড়িত প্রতিটি জাতি/ ধর্ম যাই হোক না কেন সবার জন্য ন্যায়বিচার চাই।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমি ২৫ বছর ধরে চলা একটি গৃহযুদ্ধের মধ্য বড় হয়েছি, তাই চাই না যে, পরের প্রজন্মও তেমন একটি অবস্থার মধ্য দিয়ে যাক।’

মাহেলা-সাঙ্গাকারার সঙ্গে সামিল হয়েছেন সাবেক অধিনায়ক ও বিস্ফোরক ওপেনার সনাৎ জয়াসুরিয়া ও অলরাউন্ডার অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ।

জয়াসুরিয়া বলেন, ‘শ্রীলঙ্কায় সহিংসতার ঘটনা দেখে ঘৃণা ও হতাশ লাগছে। আমি দৃঢ়ভাবে এর নিন্দা করি এবং জড়িত অপরাধীদের ন্যায়বিচারের আওতায় আনার আহ্বান জানাই। আমি শ্রীলঙ্কান জনগণকে এই কঠিন সময়ে একসাথে থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।’

আর ম্যাথুজ বলেছেন, ‘আমরা শ্রীলঙ্কানরা তিন দশক একটা তিক্ত অভিজ্ঞতা ভোগ করেছি। এসময় অনেক প্রিয়জনকে হারিয়েছি। যার ফলে অনেক প্রত্যাশা এবং স্বপ্ন তাত্ক্ষণিকভাবে বিদীর্ণ হয়েছে। আমার এবং আমার পরিবার সহ অনেকেই রাস্তায় হাঁটতে ভয় পাচ্ছে এবং অনিশ্চয়তা মধ্যে রয়েছে।’-সূত্র: চ্যানেল আই অনলাইন।