প্রিয়জনের বিষণ্নতা কাটাবেন যেভাবে

আপনার প্রিয় মানুষটি কী সারাক্ষণ বিষণ্ন থাকে? দুশ্চিন্তা-অবসাদে মুখ ভার করে বসে থাকে সারা দিন?বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিষণ্নতার মতো মানসিক সমস্যা যে কারও হতে পারে। এটা কোনো চারিত্রিক বা শারীরিক দুর্বলতা নয়। এ অসুস্থতা মন, আচরণ, আবেগ ও ভালো থাকার অনুভূতির ওপর প্রভাব ফেলে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে মানুষের মানসিক সমস্যা বাড়ার হার উদ্বেগজনক বলে উল্লেখ করা হয়েছে। স্বল্প ও স্বল্পোন্নত দেশগুলোতে আত্মহত্যার অন্যতম কারণ হিসেবে বিষণ্নতা ও উদ্বেগের বিষয়টিকে তুলে ধরা হয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, বিষণ্নতার সমস্যা প্রতিরোধ করা যায়। এর চিকিৎসাও আছে। এর উপসর্গের ওপর ভিত্তি করে চিকিৎসা দেন চিকিৎসকেরা। তাঁরা বলছেন, বিষণ্নতার সমস্যায় আক্রান্ত ব্যক্তির সহযোগী, বন্ধু ও পরিবার তাঁকে এ সমস্যা কাটিয়ে উঠতে বিশাল ভূমিকা রাখতে পারেন।

এ সমস্যা কাটিয়ে উঠতে ধৈর্য ও অধ্যবসায় জরুরি। তবে বিষণ্নতার সমস্যা বাড়িয়ে দিতে পারে মানসিক চাপ। বন্ধু বা প্রিয়জন হিসেবে বিষণ্নতার উপসর্গ বুঝে এবং তা কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করতে পারেন।

বিষণ্নতা কাটাতে যেভাবে সাহায্য করবেন

১। আপনার প্রিয় মানুষকে বুঝতে দিন যে আপনি তাঁকে সাহায্য করছেন। বিচার-বিবেচনা না করে তাঁর কথা শুনুন এবং সাহায্য করার কথা বলুন।

২। পেশাদার চিকিৎসকের কাছে যেতে উৎসাহ দিন। তাঁকে সঙ্গ দিন। প্রয়োজনে তাঁর সঙ্গে চিকিৎসকের কাছে যান।

৩। তাঁকে সাহস দিন। চিকিৎসকের পরামর্শমতো ওষুধ খেতে এবং ধৈর্য ধরার গুরুত্বের বিষয়টি বোঝান। বিষণ্নতা কাটিয়ে উঠতে ধৈর্য কতখানি ভূমিকা রাখে তা বোঝান।

৪। দৈনন্দিন কাজে তাঁকে সাহায্য করুন। নিয়মিত খাবার খাওয়া ও ঘুমানোর বিষয়টি তাঁকে মনে করিয়ে দিন।

৫। প্রতিদিন ব্যায়াম করতে উৎসাহ দিন। নিজেও তাঁর সঙ্গে হাঁটুন।

৬। ইতিবাচক বিষয়গুলোর ওপর অধিক গুরুত্ব দিতে উৎসাহ দিন। নেতিবাচক বিষয়গুলো ঝেড়ে ফেলতে বলুন।

৭। আপনার কাছে যদি মনে হয়, বিষণ্ন মানুষটি নিজের কোনো ক্ষতি করবে, তবে তাঁকে একা ছেড়ে যাবেন না। জরুরি স্বাস্থ্যসেবা ও পরামর্শ দিন। তাঁর পাশে ওষুধ ও ধারালো কোনো জিনিস রাখবেন না।

৮। বিষণ্ন মানুষের যত্ন নিতে গিয়ে নিজের যত্নের কথা ভুলে যাবেন না। নিজেকেও কিছুটা স্বস্তি দিন। আপনার পছন্দের বিষয়গুলো করতে থাকুন। আপনার উৎসাহ দেখে প্রিয়জন উৎসাহী হয়ে উঠতে পারেন।

৯ ।বিষণ্ন মানুষকে দেখে আপনার মধ্যেও হতাশা পেয়ে বসতে পারে। হতাশ হবেন না। মনে হতে পারে, এ সমস্যা দূর হওয়ার নয়। কিন্তু চেষ্টা চালিয়ে যান। বিষণ্নতা কাটিয়ে একসময় দুজন ভালো সময় কাটাতে পারবেন। -তথ্যসূত্র: জিনিউজ।