জীবন বাজি রেখে জয়া শেষ করেছেন ‘বিউটি সার্কাস’

নানা ধরনের অর্থনৈতিক প্রতিকূলতা পেরিয়ে বছরখানেক পর নির্মাতা মাহমুদ দিদার মহাসমারোহে শুরু করেন ‘বিউটি সার্কাস’ ছবির শুটিং। ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ার গোপালপুরের একটি সার্কাস দলের সঙ্গে শ্যুটিংয়ে যোগ দেন জয়া আহসান, তৌকীর আহমেদসহ অন্যান্য শিল্পীরা। গতকাল ১১ মার্চ পর্যন্ত শ্যুটিং চালিয়ে অবশেষে পরিচালক মাহমুদ দিদার সফল হয়েছেন।

এমন বন্ধুর পথ সফল ভাবে শেষ করার জন্য পরিচালক দিদার সবচেয়ে বেশি কৃতজ্ঞতা জানালেনা ছবির প্রধান নায়িকা জয়া আহসানকে।  দুই বাংলার ছবি নিয়ে অভিনেত্রী জয়া আহসান বেশ ব্যস্ত সময় পার করার পরও এই ছবিটি শেষ করতে তিনি যে অক্লান্ত অমানষিক পরিশ্রম করেছেন সেই কথা বলতে ভুলেননি পরিচালক।

মাহমুদ দিদার জানালেন, ‘জয়া আহসান সত্যিই প্রকৃত শিল্পী। শুরু থেকে এ পর্যন্ত যত সংকটের মধ্য দিয়ে ছবিটি গেছে, জয়া আপা নিজ দায়িত্বে সেসব মোকাবেলা করেছেন। ছবিটির কাজ শেষ করতে তিনিই সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রেখেছেন। ঘণ্টার পর ঘণ্টা শুটিংস্পটে দাঁড়িয়ে থেকে কাজ করেছেন।

তার শরীরের ওপর দিয়ে ভয়ঙ্কর চাপ গেছে। এমনও হয়েছে— জ্বরে তার শরীর পুড়ে যাচ্ছে তারপরও বলছেন, ‘লং শটটা নেবে না?’ মোটকথা জীবন বাজি রেখে কতটা কাজ করতে পারেন তার উদাহরণ জয়া আহসান।
এদিকে জানা গেছে শুটিং শেষে ‘বিউটি সার্কাস’ ছবির পোস্ট প্রডাকশনের কাজ শুরু হয়েছে।

সার্কাসকে কেন্দ্র করে এক নারীর টিকে থাকার গল্প ‘বিউটি সার্কাস’। জয়া-সুমন ছাড়াও ছবিটিতে আরো অভিনয় করেছেন দুইবাংলার জনপ্রিয় অভিনেতা ফেরদৌস, তৌকীর আহমেদ, শতাব্দী ওয়াদুদ প্রমুখ। ছবিটি সহপ্রযোজনা করছে ইমপ্রেস টেলিফিল্মস। আগামী বছরের শুরুর দিকে মুক্তি পেতে পারে ছবিটি।