ছেলেদের ত্বকের যত্ন !

ত্বকের যত্ন মেয়েদের পাশাপাশি ছেলেদের জন্যও সমান জরুরি। ধুলাবালি ও রোদের কারণে ত্বক হয়ে পড়ে খসখসে ও অমসৃণ। ছেলেরা সাধারণত ঘরের বাইরে বেশি সময় থাকে, তাই তাদের ত্বকের যত্ন নেওয়াটা বেশি দরকার হয়ে পড়ে। নিয়মিত ত্বক পরিষ্কার করার পাশাপাশি ছেলেদের ত্বকের জন্য ফেসিয়াল জরুরি।

বাইরে বের হওয়ার আগে হাত-মুখ ধুয়ে সানস্ক্রিন লোশনটা লাগিয়ে নিন। রাস্তার ধুলাবালি মেখে একাকার হয়ে অফিসে ঢুকে নিজের টেবিলে বসার আগে একটু প্রসাধন রুমে ঢুকে মুখটা ধুয়ে নিন। ব্যাগে ছোট একটা ফেসওয়াশ রেখে দিন। তারপর ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন।

সেটা আপনার অফিসের টেবিলের তাকে রেখে দিতে পারেন।যারা শিক্ষার্থী, তারা ব্যাগের ছোট পকেটে রেখে দিন। ক্লাসে ঢোকার আগে বা ক্লাসের ফাঁকে দূর করে নিন ধুলাবালি। এটা খুব কঠিন মনে হলে ভেজা টিস্যুর একটা প্যাকেট কিনে নিন পাশের দোকান থেকে। ওটা দিয়ে মুখ মুছে নিন।

শুষ্ক ত্বক যাদের, তারা সানবার্ন ফেশিয়াল করাতে পারেন। এটি রোদের পোড়া ত্বকের জন্যও উপকারী। তা ছাড়া এই ফেসিয়ালটি টিনএজাররাও করতে পারেন। যাদের ত্বক তৈলাক্ত, তারা অ্যালোভেরা ও গোল্ড ফেসিয়াল করাতে পারেন।

বেশিরভাগ ছেলের ত্বকেই ব্রণের সমস্যা থাকে, তারা আয়ুর্বেদিক ফেসিয়াল করাতে পারেন। ব্ল্যাকহেডস দূর করতে নিয়মিত ফেসিয়াল করিয়ে নিন। এতে পুরো মুখে ম্যাসাজ করে পরে ব্ল্যাকহেডস তোলা হয়, তাই এতে ত্বকও সতেজ হয়ে ওঠে।নাকের দুই পাশে, ঠোঁটের কোনা, থুতনির কাছে ব্ল্যাকহেডস ওঠে অনেকেরই।

এটা ধুলাবালি ও ঘাম থেকেই হয়। তাঁরা একটু সময় করে মাসের ছুটির একটি দিন বেছে নিন। কোনো বিউটি স্যালনে গিয়ে ফেসিয়াল করে নিন।আপনি চাইলে নিজেও নিজের ত্বকের যত্ন করতে পারেন। রোদে পোড়া ভাব কমাতে চন্দনের প্যাক লাগাতে পারেন। বাজারে স্ক্রাব পাওয়া যায়।

দু-তিন দিন পর পর সেটি দিয়ে ত্বক কিছু সময় ম্যাসাজ করতে পারেন। গরম পানিতে ভাপ নিয়ে আস্তে আস্তে দুই আঙুলের ডগা দিয়ে চেপে ব্ল্যাকহেডস বের করতে পারেন। দুই-তিন দিন পর পর রাতে ঘুমানোর আগে উপটান লাগিয়ে কিছুক্ষণ রাখুন। তার পর ধুয়ে ফেলুন।