ভারতের বিপক্ষে একাদশে ফিরতে পারেন আবু হায়দার রনি

 

তিন ওভারে ৪০ রান দিয়ে এক উইকেট। নিদাহাস ট্রফিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জেতা ম্যাচে এই পারফরম তাসকিন আহমেদের। দল জিতেছে বলে তাসকিনের এমন বাজে পারফরম তেমন সামনে আসেনি। আগের ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে তিন ওভারে দিয়েছিলেন ২৮ রান। পাননি উইকেটের দেখা। এই অবস্থায় খুব সম্ভবত আবু হায়দার রনির কাছে জায়গা হারাতে হচ্ছে তাসকিনকে।

সর্বশেষ পাঁচ টি-টোয়েন্টিতে তাসকিন শিকার করতে পেরেছেন মোটে তিনটি উইকেট। এর চেয়েও হতাশার ব্যাপার হলো, এই পাঁচ ম্যাচের কোনোটিতে তাকে দিয়ে পুরো চার ওভার বোলিং করনোর ভরসা পাননি অধিনায়ক। পাঁচ ম্যাচের চারটিতেও ওভার প্রতি ১০-এর বেশি খরচ করেছেন তিনি। সবচেয়ে কম খরচ যে ম্যাচে, সেটিতেও ওভার প্রতি ৯.৩৩ রান করে দিয়েছেন তাসকিন।

এমন পারফর্মের পর স্বাভাবিকভাবেই দলে তার জায়গা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে এবং তাকে সরিয়ে অন্যদের সুযোগ দেয়ার কথাও শোনা যাচ্ছে। এই অন্যদের মধ্যে এগিয়ে আছেন আবু হায়দার রনি। তিনি সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি খেলেছেন ২০১৬ সালের বিশ্বকাপে। মোট পাঁচ ম্যাচে তিন উইকেট নিয়েছেন রনি। খুব একটা আশাবাদী হওয়ার মতো পারফর্ম নয় বলে তাকে বাদ দেয়া হয়েছিলো।

কিন্তু ঘরোয়া পর্যায়ে নিয়মিত ভালো খেলে নিদাহাস ট্রফির দলে জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। ছিলেন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ঘরের মাঠের সিরিজেও। কিন্তু একাদশে সুযোগ মিলেনি রনি। তবে এবার বোধহয় দর্শক হয়ে থাকতে হচ্ছে না তাকে। তাসকিন আহমেদের ব্যর্থতা খুলে দিতে পারে রনির দুয়ার