‘বিনয় শিখতে প্রধানমন্ত্রীর দিকে তাকাও’ : ড. আব্দুল মান্নান

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আব্দুল মান্নান বলেছেন, ‘বিনয় শিখতে হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকে তাকাও। বিশ্ববিদ্যালয় কি শেখাবে, আত্মশিক্ষা অর্জনই বড় শিক্ষা। জীবনে বড় কিছু হতে হলে নিজেকে নিজে গড়ে তুলো।

আমাদের প্রধানমন্ত্রীর দিকে তাকাও।’বৃহস্পতিবার (১২ এপ্রিল) দুপুরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের সমন্বিত নবীনবরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ সুন্দর করতে মুক্তিযোদ্ধারা নিজেদের জীবনকে উৎসর্গ করেছেন।

বঙ্গবন্ধু এমন একজন ব্যক্তি ছিলেন যিনি বাংলাদেশের সব জায়গা ছুঁতে পারতেন। তোমরা বঙ্গবন্ধুর রক্তের সাথে বেঈমানি করবে না। নিজেকে দেশের জন্য উৎসর্গ করার মানসিকতা তৈরি কর।’তিনি দেশের অগ্রগতির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা এখন উন্নয়নশীল দেশ। আমরা নিজেরা পেরে উঠতে শিখেছি।

পদ্মা সেতুর সব প্রকৌশলী বাংলাদেশী।’নবীনবরণের উদ্বোধক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দীন চৌধুরী বলেন, ‘কলা অনুষদ এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ও বিশেষ ঐতিহ্য এবং গৌরবগাঁথায় অভিষিক্ত অনুষদ। এ ঐতিহ্যকে ধারণ করে শিক্ষার্থীরা আমাদের সকলের প্রত্যাশিত উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে অবদান রাখতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমান বিশ্বের সাথে তাল মেলাতে হলে আধুনিক বিজ্ঞানমনস্ক শিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে।’কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. সেকান্দর চৌধুরীর সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি বক্তব্য রাখেন, অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরিণ আখতার।

এছাড়াও অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন প্রক্টর আলী আজগর চৌধুরী, সোহরাওয়ার্দী হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. বশির আহমেদ, ছাত্র-ছাত্রী নির্দোশনা ও পরামর্শ কেন্দ্রের পরিচালক আহমেদ সালাউদ্দীন প্রমুখ।

নবীনবরণ অনুষ্ঠানের ১ম পর্ব শেষে ২য় পর্বে ছিলো বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এতে অনুষদের বিভিন্ন বিভাগের সাংস্কৃতিক কর্মীরা ছাড়াও দেশের স্বনামধন্য শিল্পীরা বিভিন্ন ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন।