জেনে নিন কিডনিতে পাথরের লক্ষণসমূহ

কিডনি আমাদের শরীর থেকে প্রস্রাবের সঙ্গে বর্জ্য পদার্থ নিষ্কাশন করে। কখনো লবণের সঙ্গে বিভিন্ন খনিজ পদার্থ মিশে কিডনিতে একধরনের কঠিন পদার্থের জন্ম দেয়, যাকে আমরা কিডনির পাথর বলি। এই পাথর আকারে একটি ছোট লবণের দানা কিংবা কখনো কখনো পিংপং বল এর মত বড় হতে পারে।

আমরা সহজে এই পাথরের উপস্থিতি বুঝতে পারি না যতক্ষণ না এটি আমাদের মূত্রনালির গায়ে ধাক্কা দেয় এবং একে সংকীর্ণ করার ফলে ব্যথার উদ্বেগ করে।

আসুন জেনে নেই উপসর্গগুলো-

১। পেটের ব্যথা কিংবা কোমরের দু’দিকে ব্যথা হলে সর্তক থাকুন।

২। মূত্র ত্যাগের সময় ব্যথা অনুভব করা।

৩। প্রয়োজনের অতিরিক্ত মূত্র ত্যাগ হওয়া।

৪। মূত্র ত্যাগের সময়, মূত্রের সঙ্গে রক্ত বেরলে সাবধান হন

৫। মূত্র ত্যাগের পর যদি মূত্রের সঙ্গে বাজে গন্ধ বেরোয়, তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া উচিৎ

৬। বমির প্রবণতা।

৭। কিডনিতে কোনও সমস্যা থাকলে জ্বর আসতে পারে

আকস্মিকভাবে পেট বা পিঠে ব্যথা অনুভব করা কিংবা প্রস্রাবের সময় ব্যথা অনুভব করা মানেই কিডনিতে পাথরের লক্ষণ নয়, তবে এসব ক্ষেত্রে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া প্রয়োজন, কারণ হতে পারে এটি মারাত্মক কোনো রোগের লক্ষণ।

কিছু সাধারণ উপদেশ
কিডনিতে পাথর হলেই অপারেশন করতে হয় এমন ধারনা ঠিক নয়। ছোট অবস্থায় ধরা পরলে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যথানাশক ওষুধ সেবন এবং পর্যাপ্ত পানি পান করার মাধ্যমে এই সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব, কারণ ছোট আকৃতির পাথর সাধারণত প্রস্রাবের সাথে বের হয়ে যায়।

মনে রাখা প্রয়োজন, দৈনিক ৮-১০ গ্লাস বিশুদ্ধ পানি পান করলে শরীর থেকে বর্জ্য পদার্থ উপযুক্ত পরিমাণে প্রস্রাবের সঙ্গে বের হয়ে যায় এবং কিডনির পাথরের ঝুঁকি এবং জটিলতা কমিয়ে আনে।