অনভিজ্ঞ কোচ জেমিকে আনল বাফুফে

অস্ট্রেলিয়ার অ্যান্ড্রু ওর্ড চাকরি ছাড়ার পর থেকে শূন্য স্থান পুরনের জন্য একজন বিদেশি কোচ খুঁজে আসছিলো বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। প্রায় দেড় মাস পর নতুন কোচ হিসেবে দায়িত্ব নিতে আসছেন ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে। জুনের প্রথম সপ্তাহেই তাঁর বাংলাদেশে থাকার কথা।

জেমি হবেন বাংলাদেশের ২১তম বিদেশি এবং ব্রিটিশ কোচের দিক থেকে দুই নম্বর। এর আগে ২০০২ সালে মার্ক হ্যারিসন নামের এক ইংলিশ বাংলাদেশের কোচের দায়িত্বে ছিলেন।তবে নতুন কোচ জেমি আগের কোচের মতনই অনভিজ্ঞ। বাংলাদেশই তাঁর প্রথম জাতীয় দল।

এর আগে তিনি ইংল্যান্ডের পঞ্চম বিভাগ লিগের ক্লাব ব্যারো এফসির সহকারী কোচ ছিলেন।জেমি ডে লিলেশাল ন্যাশনাল স্পোর্টস সেন্টারে ফুটবল খেলা শুরু করেন। সে সময় তার সঙ্গে ফুটবল খেলা শুরু করেছিলেন মাইকেল ওয়েনের মতো তারকারা।

ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-১৬, অনূর্ধ্ব-১৭ ও অনূর্ধ্ব-১৮ দলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন জেমি ডে। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ক্লাব আর্সেনালের সঙ্গে তার চুক্তিও হয়েছিল। তিনি এই ক্লাবের হয়ে একটি ম্যাচও খেলেননি..১৯৯৯ সালের মার্চে তিনি যোগ দেন ইংলিশ ক্লাব বার্নাম্যুতে। এই ক্লাবে তার অভিষেক হয় নর্দাম্পটন টাউনের বিপক্ষে।

জেমি ডে’র জাতীয় দলের হয়ে ফুটবল খেলার স্বপ্ন পূরণ হয়নি ইনজুরির কারণে।তারপরও কোচ হিসাবে তিনি খেলাধুলার সঙ্গে নিজেকে জড়িয়ে রেখেছেন। তিনি আর্সেনাল ও চার্লটনের যুব দলের কোচ হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ইদি হওয়ে ও আর্সেন ওয়েঙ্গারের সুপারিশে তিনি উয়েফার ‘এ’ কোচিং লাইসেন্স পান।

২০০৯ সাল থেকে জিমি সিনিয়র টিমের কোচ হিসেবে কাজ করতে শুরু করেন। তিনি আরও কয়েকটি ক্লাবের হয়ে কাজ করেছেন। এর মধ্যে রয়েছে ওয়েলিং ইউনাইটেড এফসি, এবসফ্লিট ইউনাইটেড ফুটবল ক্লাব, ব্রেইনট্রি টাউন ফুটবল ক্লাব ও গিলিংহ্যাম এফসি।

নতুন কোচের সঙ্গে বাফুফে এক বছরের চুক্তি করতে যাচ্ছে। চুক্তি অনুযায়ী নভেম্বরের আগে কোনো পক্ষই চুক্তি ভঙ্গ করতে পারবে না।