দু-এক দিনের মধ্যে কক্ষপথে পৌঁছাবে বঙ্গবন্ধু-১

আগামী দু-এক দিনের মধ্যেই নিজ কক্ষপথে পৌঁছে যাবে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট। এরই মধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর তিনটি সোলার প্যানেলই খুলে গেছে এবং এখন সূর্য থেকে শক্তি নিয়েই চলছে স্যাটেলাইটের কার্যক্রম।বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের সংশ্লিষ্ট প্রকল্প কর্মকর্তা সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক জানিয়েছেন, এখন পর্যন্ত ফ্লোরিডার উৎক্ষেপন কক্ষ থেকেই বঙ্গবন্ধু-১ নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে স্যাটেলাইটটির অবস্থান এবং পরিস্থিতি সম্পর্কে পরিস্কার ধারণা পাওয়া যাবে।

আগের হিসাব অনুসারে ১১৯.১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমায় স্যাটেলাইটের নিজ কক্ষপথে অবস্থান নিতে ৯ থেকে ১০ দিন লাগার কথা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সময়ানুসারে গত ১১ মে বিকেল ৪টা ১৪ মিনিটে মহাকাশের পথে উড়ে যায় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মহকাশে স্যাটেলাইট উড়ে যাওয়ার পর দুটি ধাপে এর উৎক্ষেপণ প্রক্রিয়া শেষ হয়। এর মধ্যে উৎক্ষেপণ স্থান থেকে ৩৬ হাজার কিলোমিটার দূরে স্যাটেলাইটটির যেখানে যাওয়ার কথা তার মধ্যে ৩৫ হাজার ৭০০ কিলোমিটার পার হয়ে গেছে কয়েক মুহূর্তে।

এরপর রকেটের স্টেজ-২ খুলে যাওয়ার পর থেকে এটির গতি ধীর হয়ে যায়।প্রথম ১০ দিনের এই প্রক্রিয়াকে বলে লঞ্চ অ্যান্ড আরলি অরবিট ফেজ। এ সময়ের মধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর প্রথম ধাপ শেষ হবে বলে নিশ্চিত করেছে থ্যালাস ও উৎক্ষেপন কোম্পনি স্পেসএক্স।

প্রসঙ্গত, লঞ্চ অ্যান্ড আরলি অরবিট ফেজ শেষ হওয়ার পর স্যাটেলাইট ইন অরবিট করতে আরও ২০ দিন লাগবে। তখন স্যাটেলাইটটি চূড়ান্তভাবে কক্ষপথে বসবে। কক্ষপথে চূড়ান্তরূপে অবস্থান নেওয়ার পর পৃথিবী হতে ৩৬ হাজার কিলোমিটার ওপর দিয়ে চলবে এই স্যাটেলাইট।

এ উচ্চতায় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট পৃথিবীর সমান গতিতেই ঘুরবে। মানে পৃথিবীর মতো ২৪ ঘন্টায় একবার সূর্য প্রদক্ষিণ করবে। ফলে পৃথিবী হতে স্যাটেলাইটটিকে স্থির মনে হবে। তবে সব কিছু শেষ করে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট থেকে সেবা পেতে সব মিলে তিন মাসের মতো সময় লাগবে।