ইংল্যান্ডের হ্যারি কেইনই পাচ্ছেন গোল্ডেন বুট !

এবারের রাশিয়া বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি গোলের মালিক ইংল্যান্ডের হ্যারি কেইন। এদিকে কেইনের সামনে আরও অন্তত দুটি ম্যাচ খেলার সম্ভাবনা আছে।

এর মধ্যে একটি নিশ্চিত আর সেটি হলো সেমিফাইনাল, যাতে তার প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া।

তাই এখনো কেইনের গোল করার সম্ভাবনা আছে বলে মনে করা হচ্ছে। শেষ ষোলোতে কলাম্বিয়াকে হারানো পেনাল্টি গোলের মাধ্যমে তার গোলের সংখ্যা ছয়টি।

তার ছয়টি গোলের মধ্যে তিনটি এসেছে পেনাল্টি থেকে। আর একটি হেড থেকে ও দুটি বক্সের ভেতর থেকে। এর পরে সবচেয়ে বেশি চারটি গোল করেছেন লুকাকু যার তিনটি বক্সের ভেতর থেকে আর একটি হেডে।

তার কাছেই আছেন বেলজিয়ামের রোমেলু লুকাকু এবং এরপরেই আছেন ফরাসী তারকা কিলিয়েন এমবাপ্পেসহ কারও কয়েকজন।

আর সেমিফাইনালে জিতলে ইংল্যান্ড মুখোমুখি হবে ফ্রান্স বা বেলজিয়ামের। ফরাসি তারকা গ্রিজম্যানের তিন গোলের মধ্যে দুটি পেনাল্টি আর একটি বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া শটে। এমবাপ্পের তিনটি গোলই এসেছে বক্সের ভেতর থেকে। এছাড়া দুটি করে গোল আছে ক্রোয়েশিয়া মদরিচ আর বেলজিয়ামের হ্যাজার্ডের ।

মজার বিষয় হলো হ্যারি কেইন ছটি গোল করতে শট মেরেছেন দশটি। ২০১০ এর বিশ্বকাপে প্রথম গোল্ডেন বুট দেওয়া শুরু হয়। এর আগে ১৯৮২ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত দেওয়া হতো গোল্ডেন শু । তবে এর আগে আনুষ্ঠানিক পদক না দিলেও দেওয়া হতো সর্বোচ্চ গোলদাতার স্বীকৃতি।

এর আগে ২০১৪ বিশ্বকাপে কলম্বিয়ার রদ্রিগেজ ও ১৯৯৮ সালে ক্রোয়েশিয়ার সুকার ছয়টি করে গোল দিতে সর্বোচ্চ গোলদাতার অ্যাওয়ার্ড পেয়েছিলেন।

তবে ২০০২ সালে সর্বোচ্চ আট গোল করে গোল্ডেন জুতো পেয়েছিলেন ব্রাজিলের রোনালদো। আর ২০০৬ ও ২০১০ সালে পাঁচটি করে গোল দিয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতা হয়েছিলেন যথাক্রমে জার্মানির ক্লোসার ও মুলার।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে আন্তর্জাতিক ফুটবলে অভিষেক হয় কেইনের। সে সময় লিথুয়ানিয়ার বিরুদ্ধে এবং সেই ম্যাচেই প্রথম গোলটি দিতে তিনি সময় নিয়েছিলেন মাত্র ৭৯ সেকেন্ড। সেই গোলটি দিতে তাকে ফুটবল স্পর্শ করতে হয়েছে মাত্র তিনবার ।

তথ্যসূত্র: বিবিসি বাংলা।