বেলজিয়ামকে কাঁদিয়ে ফাইনালে ফ্রান্স

বেলজিয়ামকে ১-০ গোলে হারিয়ে ফাইনালে উঠেছে ফ্রান্স। পুরো ম্যাচ জুড়েই ছিলো টানটান উত্তেজনা। ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে মরিয়া হয়ে উঠেছিলো দুই দলই। আক্রমণ, পাল্টা আক্রমণে বেশ জমে উঠে রাশিয়া বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের প্রথম ম্যাচ।

ফ্রান্স-বেলজিয়াম বলে কথা। পুরো ৪৫ মিনিটে পাওয়ার ফুটবলের প্রদর্শনী দেখালেও প্রথমার্ধে গোলবঞ্চিতই থাকতে হয়েছে ফ্রান্স-বেলজিয়ামকে। এরপর খেলায় ৫১ মিনিটের মাথায় দলের হয়ে একমাত্র গোলটি করেন স্যামুয়েল উমিতির।

ফ্রান্সের এটি ষষ্ঠ সেমিফাইনাল। আর বেলজিয়ামের দ্বিতীয়। আগের পাঁচ সেমিফাইনালের তিনবারই সেমিফাইনাল হারে ফ্রান্স। ফাইনালে উঠে ১৯৯৮ সাল ও ২০০৬ সালে। ২০০৬ সালে রানার্সআপ হয়ে এবং ১৯৯৮ সালে চ্যাম্পিয়ন হয়ে বিশ্বকাপের মিশন শেষ করে ফ্রান্স। অন্যদিকে বেলজিয়াম বিশ্বকাপ সেমিতে খেলেছে একবারই, ১৯৮৬ সালে। সেবার সেমিফাইনালে তারা বাদ পড়ে আর্জেন্টিনার কাছে। চ্যাম্পিয়নদের কাছে হেরে সেমি থেকে বিদায় নেয় তারা।

ঐতিহ্যের দিক থেকে বেলজিয়ামের তুলনায় এগিয়ে ছিলো ফ্রান্স। রাশিয়া বিশ্বকাপের টপ ফেভারিট তালিকায় ফ্রান্স উপরের দিকে না থাকলেও আলোচনায় ছিল ভালোভাবেই। অন্যদিকে দারুণ সব ফুটবলার নিয়ে সাজানো দল থাকলেও বেলজিয়াম সেমি ফাইনালে জায়গা করে নেবে এমনটা প্রত্যাশা করেননি অনেকেই। সেই বেলজিয়ামই ব্রাজিলের মতো দলকে বিদায় করে সেমিফাইনালে উঠে এসেছে।

ফ্রান্সের কিলিয়ান এমবাপ্পে ও গ্রিজম্যান, পল পগবার মতো তারকা থাকলেও বেলজিয়ামে ছিলো অধিনায়ক এডেন হ্যাজার্ডের মতো ফুটবলার। প্লে-মেকারের ভূমিকাও ছিলো দারুণ।