শিরোপা জয়ের লড়াইয়ে জিদানের বাজি ফ্রান্স

বেলজিয়ামের গোল্ডেন জেনারেশনকে থামিয়ে ফাইনালে ফ্রান্স। দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা জেতার সুবর্ণ সুযোগ দেশমের দলের সামনে। এমবাপে, গ্রিজম্যানদের এই দলের সাথে ৯৮ বিশ্বকাপজয়ী দলের খুব একটা পার্থক্য দেখছেন না জিনেদিন জিদান। ফরাসী কিংবদন্তীর বাজি শিরোপা উঠবে দেশমের শিষ্যদের হাতে। বিশ্বসেরা হওয়ার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী পগবারাও।

৯৮ বিশ্বকাপ জয়ের নায়ক জিনেদিন জিদান; সেই দলের নেতা ছিলেন ছিলেন দিদিয়ের দেশম। জিদানদের নেতা এবার দায়িত্ব সামলাচ্ছেন ডাগআউটের। দেশম রসায়নে বাজিমাতের অপেক্ষায় লা ব্লুস। এমবাপে, গ্রিজম্যানদের গতি, ডিবলিংয়ে সব বাঁধা ডিঙিয়ে শিরোপার খুব কাছে ফ্রান্স। তরুণ দলটার সাথে বিশ্বকাপজীয় দলের মিল খুঁজে পাচ্ছেন জিদান।

জিনেদিন জিদান বলেন, দিদিয়ের দেশমে একজন ফাইটার, ও অনেক পরিশ্রম করেছে দলটি নিয়ে। খুব ভালো একটি অব্স্থানে আছে এখন ফ্রান্স, আমি এই দল নিয়ে আশাবাদী আশা করি ফ্রান্স এবার শিরোপা জিততে পারবে।

২০০৬ এ ইতালির কাছে হেরে স্বপ্ন ভেঙেছিলো জিদানের দলের। ২০১৬ ইউরোতে থামতে হয় পর্তুগালের কাছে। দুইবার শিরোপা জিততে না পারার আক্ষেপ এবার ভুলতে চায় দেশমের শিষ্যরা।

পল পগবা বলেন, এখনও সব পাওয়া হয়নি, আরও একটি ধাপ বাকি আছে, ইউরোতে আমার সুযোগ হাতছাড়া করেছি। এবার নিজেদের নিংড়ে দিতে চাই, ওই ঘটানর পুনরাবৃত্তি হতে দেবো না।

এমবাপে বলেন, আমি স্বপ্ন দেখতে ভালোবাসি, কিন্তু এভাবে ফাইনালে আসবো তা স্বপ্নেও ভাবিনি। পুরো ব্যাপারটা ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না। চ্যাম্পিয়ন হতে গেলে আমাদের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। এই ম্যাচেও দারুণ পারফর্ম করতে হবে।

২০০৬ বিশ্বকাপের ফাইনালে জিদানের এক ঢুঁসে কপাল পোড়ে ফ্রান্সের। রিয়ালের দায়িত্ব ছাড়ার পর বর্তমানে চাকুরিহীন মাঠে না আসলেও ঘরে বসেই নজর রাখছেন উত্তরসূরীদের দিকে। তবে শিরোপা জয়ের উল্লাস করতে ১৫ জুলাইয়ের ফাইনালে থাকতে চান ফ্রান্স কিংবদন্তী।