‘আপনার লাইসেন্সটা দেখান’ পুলিশকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা

পুলিশের এক কর্মকর্তা বুধবার মোটরসাইকেলে (ঢাকা মেট্রো হ ৩৫-৫৩২৭) যাচ্ছিলেন। ওই সময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা কর্মকর্তার পথরোধ করে লাইসেন্স দেখতে চান।

সম্প্রতি বিমানবন্দর সড়কে বাস চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা পুলিশ থেকে শুরু করে বিভিন্ন পরিবহনের লাইসেন্স চেক করতে থাকে।

পুলিশ কর্মকর্তাকে শিক্ষার্থীরা বলেন ওঠেন, আমাগোরে তো ঠিকই ধরেন, এখন আপনার লাইসেন্সটা দেখান। ওই কর্মকর্তার পাশে দাঁড়ানো আরেক কর্মকর্তা ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের শান্ত করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

মোটরসাইকেলে বসে থাকা পুলিশ কর্মকর্তা নিজেই বলেন, ‘বাবারা ভুল হয়েছে আমাকে যেতে দাও। এ সময় তিনি লাইসেন্স না থাকার কথা স্বীকার ও ভুল হয়েছে বলে এ যাত্রায় বাঁচেন।’ এক মিনিট ৩৮ সেকেন্ডের এমনই একটি ভিডিও আজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। তবে শিক্ষার্থীদের এবং পুলিশ কর্মকর্তার পরিচয় জানা যায়নি।

আরেকটি ভাইরাল হওয়া ৩০ সেকেন্ডের ভিডিওতে হাসান নামের এক মধ্যবয়সী পুলিশ সদস্যকে লাইসেন্স দেখাতে বলেন শিক্ষার্থীরা। তিনি মানিব্যাগ হাতড়ে লাইসেন্স খুঁজছিলেন। পরে একটি লাইসেন্স বের করলেও সেটির মেয়াদ বহু আগেই শেষ হয়ে গেছে বলে জানা গেছে।

৩০ সেকেন্ডের অন্য একটি ভিডিওতে ফিরোজ নামের আরেক ট্রাফিক কনস্টেবলকে ঘিরে লাইসেন্স আছে কি-না জানতে চাওয়ার দৃশ্য দেখা যায়। এ সময় পুলিশ কনস্টেবল পুলিশের লাইসেন্স লাগে না এমন কথা বলেছে জানালে অন্যান্য শিক্ষার্থীরা ভুয়া ভুয়া বলে চিৎকার করতে থাকে।

উল্লেখ্য, রোববার (২৯ জুলাই) দুপুরে রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনে এমইএস বাস স্ট্যান্ডে জাবালে নূর পরিবহনের বাসচাপায় ঘটনাস্থলেই নিহত হন শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী দিয়া খানম মিম ও বিজ্ঞান বিভাগের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আব্দুল করিম রাজিব। একই ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১০/১৫ জন শিক্ষার্থী।

তাদের বিচারের দাবিতে সেদিন থেকেই রাজপথে অবরোধ করেছে শিক্ষার্থীরা।

তথ্যসূত্র: জাগোনিউজ২৪