পারেনি ভারত, পেরেছে বাংলাদেশ

সাফ ফুটবলে ভারতের কাছেই হেরে শিরোপা হারিয়েছে বাংলাদেশের মেয়েরা। এইতো ক’দিন হলো। তারপরেই এএফসি ফুটবলের চ্যালেঞ্জে নেমে পড়েছিলো দুই দেশই। অপরাজিত গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে মারিয়া-তহুরারা জায়গা করে নিয়েছে এএফসি ফুটবলের দ্বিতীয় রাউন্ডে। আর ভারত বিদায় নিয়েছে বাছাইপর্ব থেকে।

এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের দ্বিতীয় রাউন্ডে বাংলাদেশ পাচ্ছে আরও সাত দলকে। ছয়টি গ্রুপ থেকে ২৯ দলের মধ্যে এ রাউন্ডে জায়গা করে নিয়েছে লাল-সবুজরা। বাকী সাত দল হলো-চীন, লাওস, ইরান, অস্ট্রেলিয়া, মায়ানমার, ভিয়েতনাম ও ফিলিপাইন।

অন্যদিকে সাফ চ্যাম্পিয়নরা বাদ পড়েছে বাছাইপর্ব থেকে। বি গ্রুপ থেকে লাওসের সঙ্গে ড্র আর মঙ্গোলিয়ার কাছে হেরে বিদায় নিতে হয়েছে ভারতকে। তারাই ভুটানে অনুষ্ঠিত সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ চ্যাম্পিয়নশিপের ট্রফি ঘরে তুলেছিল বাংলাদেশকে ১-০ ব্যবধানে হারিয়েই।

সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে এএফসি ফুটবলে জয়ের পর জয় উপহার দিয়েছে গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যরা। এফ গ্রুপ থেকে চার জয় আর ২৭ গোল করে অপরাজিত গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন কিশোরীরা। সাফ ব্যর্থতার ক্ষোভ থেকেই এমন বিস্ফোরক সাফল্য মেয়েদের।

তবে, একটা জায়গায় বাংলাদেশ থেকে এগিয়ে আছে ভারত। নারী ফুটবলারদের নিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক লিগ শুরু করে দিয়েছে তারা। সেখানে শিরোপার পর শিরোপা ঘরে তোলা দেশের মেয়েদের নিয়ে এখনও কোনও লিগই শুরু করতে পারে নি বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। অবশ্য মেয়েদের লিগ নিয়ে আশার কথা শুনিয়েছেন বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দীন, ‘ক্লাবগুলোর সঙ্গে কথা বলেছি মেয়েদের লিগ নিয়ে। আলোচনাও হয়েছে। আশা করি এক বছরের মধ্যে ভালো কিছু হবে।’

পৃষ্ঠপোষকরা অপেক্ষায় থাকলেও বাফুফে আর ক্লাবের ‘ইচ্ছাশক্তির‘ অভাবেই মাঠে গড়াচ্ছে না মেয়েদের লিগ ফুটবল। যদিও এর আগে কৃষ্ণা আর সাবিনার মুখে লিগ না হওয়ার আক্ষেপ ঝরেছে।

আপাতত সেই চিন্তায় নেই মেয়েরা। ভুটানে আরেকটি সাফ ফুটবল খেলতে চলে যেতে হচ্ছে মারিয়াদের।

অন্যদিকে আগামী বছর ২৩ ফেব্রুয়ারি থেকে থাইল্যান্ডে এএফসি কাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে অংশ নিবে কিশোরীরা। দুই গ্রুপে আটটি দল থেকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ চার দল জায়গা করে নিবে ফাইনালে। সেখানে তাদের জন্য অপেক্ষা করছে দুই কোরিয়া, জাপান ও আয়োজক দেশ থাইল্যান্ড। তার আগে কঠিন পথ পাড়ি দিতে হবে মেয়েদের।

সূত্র: সারাবাংলা