পরকীয়ার বৈধতা দিল ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

সমকামীতার পর এবার পরকীয়াকে বৈধ বলে রায় দিল ভারতের সর্বোচ্চ আদালত। এ রায়কে ঐতিহাসিক বলে উল্লেখ করছে ভারতীয় গণমাধ্যম।

আদালতের মতে বিশ্বের বেশিরভাগ দেশই পরকীয়ার বিরুদ্ধে আইন বাতিল করেছে। ভারতে ১শ’ ৫৮ বছর ধরে চলা আইন অনুযায়ী পরকীয়ার জন্য পুরুষকে দায়ী করে কারাদণ্ড দেয়া হয়, নারীদের ক্ষেত্রে মনে করা হয় তারা অপরাধের শিকার। এবার সে আইন বাতিল করে পরকীয়াকে অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হবে না বলে রায় দিলেন আদালত।

বিদায়ী প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রার নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ এ রায় দেন। রায়ে বলা হয়, ‘পরকীয়া অপরাধ হতে পারে না। তবে এটি ফৌজদারি অপরাধ এবং বিবাহ বিচ্ছেদের কারণ হতে পারে।’

ওই রায়ে প্রধান বিচারপতির পর্যবেক্ষণ, এই আইন স্বেচ্ছাচারিতার নামান্তর। নারীদের স্বাতন্ত্র খর্ব করে।

ইংরেজ শাসনামলে তৈরি আইনকে চ্যালেঞ্জ করে দায়ের হওয়া একটি মামলার পরিপ্রেক্ষিতেই এই রায় দিল শীর্ষ আদালত।

১৮৬০ সালের ওই আইনে বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি কোনো নারীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক করলে এবং ওই নারীর স্বামীর অনুমতি না থাকলে পাঁচ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড এবং জরিমানা বা উভয়ই দণ্ড হতে পারে।

এই আইনকে চ্যালেঞ্জ করেই একাধিক মামলা দায়ের করা হয়। বাদীদের দাবি ছিল, ঔপনিবেশিক শাসনামলের ওই আইনে নারীদের সম্পত্তি হিসাবে গণ্য করে এই আইন তৈরি হয়েছিল। কিন্তু বর্তমান সমাজ ব্যবস্থার প্রেক্ষিতে এই আইন বাতিল করা উচিত।

এর পরিপ্রেক্ষিতেই রায় দিয়ে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে পরকীয়া আর অপরাধ বলে গণ্য হবে না।

সূত্র: সময় নিউজ।