কওমি সনদের স্বীকৃতির বিল পাস: প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা দেবেন আহমদ শফী

কওমি সনদের স্বীকৃতির বিল জাতীয় সংসদে পাস করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা দেবেন শাহ আহমদ শফী। কওমি মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদিসের সর্বোচ্চ সংস্থা আল হাইআতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কাওমিয়া বাংলাদেশের উদ্যোগে এ সংবর্ধনা দেওয়া হবে। এ মাসেই ঢাকায় অনুষ্ঠান করে সংবর্ধনা দেওয়ার জন্য একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

সোমবার (০১ অক্টোবর) চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে সংস্থাটির সভাপতি ও হেফাজতে ইসলামের আমির শাহ আহমদ শফীর সভাপতিত্বে আল হাইআতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কাওমিয়া বাংলাদেশের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

১৮ সেপ্টেম্বর জাতীয় সংসদে কওমি মাদ্রাসাগুলোর দাওরায়ে হাদিস (তাকমিল) এর সনদকে মাস্টার্স ডিগ্রি (ইসলামিক স্টাডিজ ও আরবি) সমমান প্রদান আইন, ২০১৮’ পাস হয়। এ কারণে আল হাইআতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কাওমিয়া বাংলাদেশ সোমবার বৈঠক করে। কওমি মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদিসের সর্বোচ্চ সংস্থাটির অন্তর্ভুক্ত ৬ বোর্ডের কর্মকর্তা বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন। এ বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এজন্য ১৫ সদস্যের কমিটিও গঠন করা হয়।

১৫ সদস্যের কমিটিতে রয়েছেন মাওলানা আশরাফ আলী, মুফতি রুহুল আমীন, মুফতি ওয়াক্কাস, মুফতি ফয়জুল্লাহ, মাওলানা মুসলেহুদ্দীন রাজু, মাওলানা আনাস মাদানী, মাওলানা আবদুল কুদ্দুস, মাওলানা মাহফুজুল হক, মুফতি নুরুল আমিন, আবদুল হালিম বোখারী, মাওলানা আরশাদ রাহমানী, মুফতি মুহাম্মদ আলী, মাওলানা আবদুল বছির।

জানা গেছে, বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সংবর্ধনা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আল হাইআতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কাওমিয়া বাংলাদেশের সদস্যরা। প্রধানমন্ত্রীর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন শাহ আহমদ শফী। তবে সংবর্ধনার তারিখ এখনও নির্ধারণ করা হয়নি।
শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বে আল হাইআতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কাওমিয়া বাংলাদেশের বৈঠকে আগামী দাওরায়ে হাদিসের পরীক্ষার তারিখ, পরীক্ষার পদ্ধতির মানোন্নয়নের বিষয়েও আলোচনা হয়। এ বছর দাওরায়ে হাদিসের পরীক্ষা ২ শাবান অনুষ্ঠিত হবে। চলবে ১২ শাবান পর্যন্ত। শুক্রবার পরীক্ষা বন্ধ থাকবে।

এ প্রসঙ্গে মাওলানা মাহফুজুল হক বলেন, বৈঠকে আগামী দাওরায়ে হাদিসের পরীক্ষার তারিখসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। এছাড়াও কওমি মাদ্রাসার সনদের স্বীকৃতির আইন জাতীয় সংসদে পাস হওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

শাহ আহমদ শফীর সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন আশরাফ আলী, আনোয়ার শাহ, মাহমূদুল হাসান, আবদুল হালিম, আবদুল হালিম বোখারী, মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস, মুফতি ফয়জুল্লাহ, মাওলানা মুসলেহুদ্দীন রাজু, মাওলানা আনাস মাদানী, মাওলানা আবদুল কুদ্দুস, মাওলানা মাহফুজুল হক, মুফতি নুরুল আমিন, মাওলানা ইয়াহইয়া মাহমুদ, মাওলানা আরশাদ মাদানী, মাওলানা মুহাম্মদ আলী, মাওলানা আবদুল বছির, মুফতি এনামুল হাক, মাওলানা শামসুল আলম প্রমুখ।

তথ্যসূত্র: বাংলা ট্রিবিউন