স্ত্রীকে বললাম ‘আগামীকাল অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা বঙ্গভবনে আসবে, এই কথা শুনে আমার ওয়াইফ…

আমার ওয়াইফ প্রধানমন্ত্রীকে ফোন দিয়ে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছে। দেশে পুরুষ নির্যাতনের বিরুদ্ধে একটা আইন হওয়া দরকার। শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫১তম সমাবর্তনে এসে সভাপতির ভাষণে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এ মন্তব্য করেন। এ সময় উপস্থিত সবাই হাততালি দিয়ে রাষ্ট্রপতির বক্তব্যের সাথে একমত পোষণ করেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, আমি প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছিলাম পুরুষ নির্যাতনের বিরুদ্ধে একটা আইন হওয়া দরকার। বলেছিলাম, নারী নির্যাতনের ব্যাপারে আইন করছেন। পুরুষ নির্যাতনের ব্যাপারেও একটা আইন করেন। ওনি বলেছিলেন, আচ্ছা দেখা যাবে। কিন্তু এরপর ছয় বছর পার হয়ে গেছে।

দেশে অনেক পুরুষ নির্যাতিত হয় উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি নিজের সংসারের উদাহরণ টেনে আনেন। তিনি বলেন, আমি বিয়ে করেছি আজ ৫৪ বছর। খুব কম বয়সে বিয়ে করেছিলাম। আমি কতোটুকু কী করতে পারি এইটা ওনি (ওয়াইফ) ভালোই জানেন।

সাধারণত দেশে বিদেশি মেহমান আসলে রাষ্ট্রপতির সাথে দেখা করে, এইটাই নিয়ম। কিছুদিন আগে রোহিঙ্গা শিশুদের দেখতে দেশে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া আসলো। আমি আমার ওয়াইফকে বললাম, আগামীকাল প্রিয়াঙ্কা বঙ্গভবনে আসবে। এই কথা শোনার পর আমার ওয়াইফ প্রধানমন্ত্রীকে ফোন দিয়ে বললো, প্রিয়াঙ্কা বঙ্গভবনে আসার কী দরকার? এরপর প্রিয়াঙ্কার বঙ্গভবনে আসা ক্যান্সেল হয়ে গেলো।

কৃত্রিম হতাশা প্রকাশ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, এরপর শুনলাম প্রিয়াঙ্কা নাকি আমেরিকা গিয়ে তার চেয়ে দশ-বারো বছরের ছোট নিক নামের এক ছেলেকে বিয়ে করেছে। যদি প্রিয়াঙ্কা তারচেয়ে দশ-বারো বছরের ছোট ছেলেকে বিয়ে করতে পারে, তাহলে আমি তো তার ত্রিশ বছরের বড়ই ছিলাম। সমস্যা তো ছিলো না। কিন্তু ষড়যন্ত্রের কারণে তা হলো না।

এ সময় রাষ্ট্রপতির বক্তব্য শুনে সমাবর্তনে উপস্থিত সবাই হাসিতে ফেটে পড়েন। মুহূর্মুহূ করতালিতে সমাবর্তন প্রাঙ্গন মুখরিত হয়ে উঠে।