আমি ওর ৪১ তম গার্লফ্রেন্ড

কলকাতার ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির নতুন যুগের তারকা তারা। দু’জনেই খুব সাড়া ফেলেছেন। একসঙ্গে বেশ কিছু ছবিতে কাজও করেছেন। ‘পারবো না আমি ছাড়তে তোকে’ অভিনয় শিল্পী বনি-কৌশানী খুব ভালো বন্ধুও বটে।

শুটিংয়ের ফাঁকে হ্যাংআউট করেন, লং রাইডে যান, এমনকি একে অপরের পরিবারের সঙ্গেও সময় কাটান। সে খবর কারো অজানা নয়। তাই টলিউডের নতুন প্রজন্মের এই দুই নায়ক-নায়িকার মধ্যে অফ-স্ক্রিন সম্পর্কটা যে অত্যন্ত গভীর তা নতুন করে কিছু বলার নেই। অথচ এখনো সরাসরি কেউই বলছেন না তারা প্রেম করছেন।

নিজের প্রেমিক বনির সম্পর্কে ভারতের টালিগঞ্জের অভিনেত্রী কৌশানি মুখোপাধ্যায় বলেন, বনির সাক্ষাৎকার শুনে মনে হচ্ছে, আমি মনে হয় তার ৪১তম গার্লফ্রেন্ড। খুচরো খাচরা মিলিয়ে আগে নাকি তার ৪০ জন গার্লফ্রেন্ড ছিল।

তিনি আরো জানান, এটা আগে থেকে জানতাম না। তবে ৪০ অবধিও সংখ্যাটা যায়নি আমি নিশ্চিত। ও মেয়ে পাগল, আমার মনে হয় না, ৪০ জন মেয়ে ওর জন্য সময় নষ্ট করেছে।

তিনি আরো জানান, সে আমার দ্বিতীয় প্রেমিক। আই অ্যাম ওয়ান ম্যান ওম্যান। দেখুন, সবাইকে তো চান্স দিইনি। আমাকে দেখে সবাই বলে খুব অ্যাটিটিউড আছে। কিন্তু আসলে সেটা নয়। আমি মানুষের সঙ্গে মিশতে ভালোবাসি। আমার মনে হয় অন্যের জীবনে আমি রং আনতে পারি। সেই পয়েন্ট অফ ভিউ থেকে বলতে পারি আমি অ্যাটেনশন ভালবাসি।

ছোট থেকে বহু ছেলে অ্যাটেনশন দিয়েছে। প্রোপোজ করেছে। কিন্তু বয়ফ্রেন্ড কথাটা একজনের জন্যই ইউজ করব। যার সঙ্গে রেস্ট অফ দ্য লাইফ কাটাবো বলে প্ল্যান করেছিলাম। সেজন্য বনি দু’নম্বর।

তবে সুন্দরীদের সঙ্গে হয় বোধহয় এটা হয়। ধরুন, কোনো ছেলের সঙ্গে কথা বললাম একরকমভাবে, আর সে নিয়ে নিল অন্যভাবে। ভাবল আমিও ইন্টারেস্টেড। কিন্তু অ্যাকচুয়ালি সেটা না।

তিনি আরো বলেন, তবে আমি যখন থেকে বনির জীবনে এসেছি, আমার মনে হয় না ও আর কিছুতে ইন্টারেস্টেড। কারো সঙ্গে কথা বলল বা ছুঁকছুঁকানি যদি থাকেও আমার সমস্যা নেই। আমি ওপেন মাইন্ডেড। কিন্তু আমাকে যেন সব কিছু ইনফর্ম করে দেয়।

কৌশানি আরো বলেন, বনির কিছু খবর আমার কানে এসেছে। কিন্তু সেটা খবরই। আসলে আমাদের বিশ্বাসের জায়গাটা খুব স্ট্রং। আমার মতো প্রেমিকা কারো জীবনে থাকলে তার আর অন্য কারও কাছে যাওয়ার দরকার পড়ে না। কারণ তার আর আমার লাইফে যা যা মিসিং ছিল, সেগুলো ব্যালেন্স হয়েছে বলেই আমরা একসঙ্গে অাছি।