লিটনের ডাবল সেঞ্চুরি: ১৪২ বলে ২০৩

চার দিনের ক্রিকেটে বুধবার ঝড়োয়া ব্যাট করলেন রংপুর বিভাগের হয়ে খেলা ওপেনার লিটন দাস। ১৪২ বলে ২০৩ রান করেন তিনি। এই রান করার পথে তিনি ৩২টি চার মারেন ও চারটি ছক্কা হাঁকান। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে লিটনের এটি ১৩তম সেঞ্চুরি। সম্প্রতি এশিয়া কাপের ফাইনাল ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করেছিলেন লিটন দাস। তারপর দেশে ফিরে প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলতে নেমে করলেন ডাবল সেঞ্চুরি।

রাজশাহীর শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে গত সোমবার শুরু হয়েছে রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের মধ্যকার ম্যাচটি। এদিন টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ১৫১ রানে অলআউট হয় রংপুর বিভাগ। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬০ রান করেন নাঈম ইসলাম।

রাজশাহী বিভাগের বোলারদের মধ্যে ফরহাদ রেজা ৩টি, মোহর শেখ ৩টি, শফিকুল ইসলাম ২টি, তাইজুল ইসলাম ১টি ও সানজামুল ইসলাম ১টি করে উইকেট শিকার করেন। পরে রাজশাহী বিভাগ ব্যাট করতে নেমে বিনা উইকেটে ৯৯ রান সংগ্রহ করে দিনের খেলা শেষ করে। ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত ৩৭ রান করে ও মিজানুর রহমান ৫৯ রান করে অপরাজিত থাকেন।

মঙ্গলবার সকালে আবার ব্যাট করতে নামে রাজশাহী বিভাগ। নাজমুল হোসেন শান্ত ও মিজানুর রহমানের সেঞ্চুরিতে তারা দুই উইকেটে ৪১৯ রান সংগ্রহ করে দিনের খেলা শেষ করে। ১৭৩ রান করেন নাজমুল হোসেন শান্ত। ১৬৫ রান করেন মিজানুর রহমান। দিন শেষে জুনায়েদ সিদ্দিক ৩৯ রান করে ও ফরহাদ হোসেন ২৬ রান করে অপরাজিত থাকেন।

বুধবার ব্যক্তিগত সেঞ্চুরি করেন জুনায়েদ সিদ্দিক। ১০০ রান করে অপরাজিত থাকেন তিনি। ৬২ রান করে আউট হন ফরহাদ হোসেন। ৫৫ রান করেন অধিনায়ক জহুরুল ইসলাম। তিন ব্যাটসম্যানের সেঞ্চুরি ও দুই ব্যাটসম্যানের হাফ সেঞ্চুরিতে চার উইকেটে ৫৮৯ রান সংগ্রহ করে ইনিংস ডিক্লেয়ার করে রাজশাহী বিভাগ। রংপুর বিভাগের বোলারদের মধ্যে আরিফুল হক ১টি, সোহরাওয়ার্দী শুভ ১টি, মাহমুদুল হাসান ১টি ও সাজেদুল ইসলাম ১টি করে উইকেট শিকার করেন।

প্রথম ইনিংস শেষে ৪৩৮ রানের লিডে থাকে রাজশাহী বিভাগ। বিশাল এই লিড সামনে রেখে ব্যাট করতে নেমে দারুণ খেলতে থাকে রংপুর বিভাগ। মঙ্গলবার দিন শেষে তাদের সংগ্রহ দুই উইকেটে ৩১৯ রান। দলের পক্ষে লিটন দাস ২০৩ রান করে আউট হন। ৩৫ রান করেন জাহিদ জাবেদ। ৭২ রান করে অপরাজিত থাকেন মাহমুদুল হাসান। দুই রান করে অপরাজিত থাকেন অধিনায়ক সাজেদুল ইসলাম। রাজশাহী বিভাগের বোলারদের মধ্যে তাইজুল ইসলাম ১টি ও শফিকুল ইসলাম ১টি করে উইকেট শিকার করেন।