ইরাকের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার বড় জয়

লিওনেল মেসি আবারও খেলবেন কিনা নিশ্চয়তা নেই। তবে নিয়মিত অধিনায়কের অপেক্ষায় না থেকে দল পুনর্গঠনের কাজটা ভালোভাবেই শুরু করে দিয়েছে আর্জেন্টিনা। লিওনেল স্কোলনির হাত ধরে রূপান্তরটাও হচ্ছে দারুণ। ভারপ্রাপ্ত কোচের অধীনে প্রথম দুই ম্যাচে অপরাজিত থাকার পর তৃতীয় ম্যাচে ইরাককে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে আলবিসেলেস্তেরা।

প্রায় আনকোরা এক দলই বৃহস্পতিবার রাতে ইরাকের বিপক্ষে নামান স্কোলনি। সৌদি আরবের কিং ফয়সাল বিন ফাহাদ স্টেডিয়ামে অভিজ্ঞ বলতে ছিলেন গোলরক্ষক সার্জিও রোমেরো, ফরোয়ার্ড পাওলো দিবালা, ডিফেন্ডার রামিরো ফুনেস মোরি। বাকিদের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা একেবারেই কম!

আর্জেন্টিনার নতুন এই দলটি ইরাককে একেবারে দাঁড়াতেই দেয়নি। ১৮ মিনিটে দলের গোলের খাতায় নাম তোলেন লাউতারো মার্টিনেজ। মাউরো ইকার্দিকে না খেলিয়ে ইন্টার মিলানের এই তরুণকে খেলানোর বাজিটা স্কোলনির ভালোমতোই কাজে লেগেছে। ক্লাব সতীর্থের অনুপস্থিতিতে ক্যারিয়ারের প্রথম আন্তর্জাতিক গোলটাও পেয়ে গেছেন মার্টিনেজ।

দ্বিতীয়ার্ধে ডাগআউট থেকে কয়েকজনকে মাঠে নামান স্কোলনি। ৪৬ মিনিটে নামা রবের্তো পেরেইরা তাদের একজন। নেমেই ৫৩ মিনিটে দলের দ্বিতীয় গোলটি করেন ওয়াটফোর্ডে খেলা মিডফিল্ডার।

ম্যাচের ৮২ মিনিটে দুবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের হয়ে তৃতীয় গোলটি করেন ডিফেন্ডার হারম্যান পেজ্জেইয়া। আর নির্ধারিত ৯০ মিনিটের শেষ সময়ে বদলি মিডফিল্ডার ফ্রাঙ্কো কারভির গোলে বড় জয়ই নিশ্চিত করে আর্জেন্টিনা।

টানা তিন ম্যাচে অপরাজিত থাকা আর্জেন্টিনার সামনে বড় পরীক্ষা হতে চলেছে আগামী মঙ্গলবার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচটি। গুয়েতেমালা ও ইরাকের বিপক্ষে বড় জয় পেলেও কলম্বিয়ার বিপক্ষে ড্র করেছিল আর্জেন্টিনা। মেসিকে ছাড়া কতটুকু গুছিয়ে উঠতে পারল দলটি, তার নমুনা পাওয়া যাবে ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচেই।