২৫ ডলারেই অস্ত্রের লাইসেন্স মেলে নিউজিল্যান্ডে

মাত্র ২৫ ডলারের বিনিময়েই অস্ত্রের লাইসেন্স মেলে নিউজিল্যান্ডে। এছাড়া একজন মানুষ কী পরিমাণ গুলি বা এ সংক্রান্ত সরঞ্জাম কিনতে পারবেন সেই বিষয়ে কোনো বিধিনিষেধ নেই দেশটির আইনে। কোনো লাইসেন্সধারীর কাছে কী রকম আগ্নেয়াস্ত্র আছে জাতীয় রেজিস্টারে তার কোনো হিসেবও নেই।

কোনো বিদেশি যদি অস্ত্রের লাইসেন্স নিতে চান তবে বিমানবন্দর পুলিশকে শুধু দেখাতে হবে তার নিজের দেশে আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স আছে। এ ক্ষেত্রে আর কোনো কাগজপত্রের দরকার করা হয় না। একজন মানুষ কেন আগ্নেয়াস্ত্র রাখতে চান সেই বিষয়েও কোনো জিজ্ঞাসা থাকে না। দেশটিতে পর্যটকদের আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স বৈধ থাকে ১২ মাস বা এক বছরের জন্য।

তবে ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে হামলার ঘটনার অস্ত্রের লাইসেন্সের ব্যাপারে নতুন করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে মর্মান্তিক সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় বারবার গণমাধ্যমের সামনে এসে নিজেই তথ্য জানাচ্ছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আরদার্ন। সংবাদ সম্মেলন থেকে শুরু করে আহতদের দেখতে যাওয়া, তাদের খোঁজখবর নেয়া- সবখানেই নিজে যাচ্ছেন। যেখানেই যাচ্ছেন, যার সঙ্গেই কথা বলছেন, সবখানেই তাকে দেখা যাচ্ছে বিমর্ষ অবয়বে।

শোক প্রকাশে শুধু কালো পোশাকই পরেননি, মসজিদে নামাজরত মুসলিমদের হামলার ঘটনায় নিউজিল্যান্ডের মুসলিমদের প্রতি একাত্মতা প্রকাশে মাথায় ওড়না জড়িয়ে রয়েছেন।

আরদার্নের আচরণ আর চেহারার অভিব্যক্তিতেই বোঝা যাচ্ছে, শোক শুধু তার বক্তব্যে নেই, ভয়াবহ এ হামলার শোক তার মনেও আঘাত হেনেছে।

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর এমনই কিছু ছবি ঘুরে বেড়াচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন দেশের গণমাধ্যমগুলোতে।এর মধ্যে ওপরের ছবিটি ব্যাপকভাবে শেয়ার হচ্ছে।