রেকর্ড গড়ে ম্যাচ সেরা আবু জায়েদ রাহী

ত্রিদেশীয় সিরিজে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৬ উইকেটের দাপুটে জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ। টাইগারদের এ জয়ে দুর্দান্ত বোলিংয়ে অভিষেকের দ্বিতীয় ম্যাচে ৫ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতেছেন পেসার আবি জায়েদ রাহী। সেই সাথে ২০১৫ এর পর আবারো প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ৫ উইকেট নেওয়ার রেকর্ডও গড়েন এই পেসার।

এদিকে, ত্রিদেশীয় সিরিজে হেসে খেলে আয়ারল্যান্ডকে হারিয়ে দিল বাংলাদেশ। নিয়ম রক্ষার ম্যাচ, কাগজে-কলমে কোনো গুরত্ব না থাকলেও বিশ্বকাপের জন্য আদর্শ প্রস্তুতি বলা যেতে পারে। ডাবলিনের ক্লনটার্ফ ক্রিকেট গ্রাউন্ডে টসে জিতে আগে ব্যাটিং করে ৫০ ওভার খেলে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৯২ রান সংগ্রহ করে আয়ারল্যান্ড। ফলে বাংলাদেশকে ২৯৩ রানের টার্গেট দেয় আয়ারল্যান্ড।

২৯৩ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে ৪৩ ওভার খেলে ৪ উইকেট হারিয়ে ২৯৪ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। ফলে ৬ উইকেটের বিশাল জয় পায় বাংলাদেশ। বলতে গেলে বাংলাদেশের কাছে পাত্তাই পেল না আয়ারল্যান্ড। হেসে খেলে আয়ারল্যান্ডকে হারিয়ে দিল বাংলাদেশ।

এদিকে, ব্যাটিংয়ে নেমে দুর্দান্ত হাফসেঞ্চুরি করেন তামিম ইকবাল ও লিটন দাস। পরে ৫৩ বলে ৫৭ রান করে আউট হন তামিম ইকবাল। পরে ৬৭ বলে ৭৬ রান করে আউট হন। ৫১ বলে ৫০ রান করে রিটায়েড হার্ড হয়ে মাঠ ছাড়েন সাকিব আল হাসান। ৩৩ বলে ৩৫ রান করে আউট হন মুশফিকুর রহিম। ১৭ বলে ১৪ রান করে আউট হন মোসাদ্দেক। সাব্বির ৭ ও মাহমুদুল্লাহ ৩৫ রানে অপরাজিত থাকেন।

এর আগে স্টার্লিং ২১-২২ তম ওভারে পরপর দুইবার জীবন পান। প্রথমে সাব্বিরের ভুলে ক্যাচ মিসের পর পয়েন্টে একদম সহজ ক্যাচ ছেড়ে দেন অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। বোলিংয়ে এসে নিজের প্রথম ওভারেই পেতে পারতেন উইকেটের দেখা।

বাংলাদেশের হয়ে উইকেট ১টি নেন রুবেল হোসেন এবং ৫টি উইকেট নেন আবু জায়েদ রাহী। ম্যাককালামকে আউট করে প্রথম শিকার করেন রুবেল হোসেন। রুবেলের পরেই দ্বিতীয় ওয়ানডেতে এসে নিজের অভিষেক উইকেট তুলে নিলেন আবু জায়েদ রাহী। পরে আরো ৪টি উইকেট নেন তিনি। পরে শেষ ওভারে এসে ২টি উইকেট নেন সাইফুদ্দিন।

নিয়মরক্ষার এই ম্যাচে চারজনকে বিশ্রামে দিয়েছে বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট। কোচের জন্য বড় সুযোগ এই ম্যাচে তার শিষ্যদের বাজিয়ে দেখার। তাই এই ম্যাচে বড় পরিবর্তন নিয়েই মাঠে নেমেছেন মাশরাফিরা।

আগের ম্যাচের একাদশ থেকে বিশ্রামে রাখা হয়ে সৌম্য সরকার, মোস্তাফিজুর রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ ও মোহাম্মদ মিথুনকে। তাদের পরিবর্তে সুযোগ পেয়েছেন লিটন দাস, মোসাদ্দেক হোসেন, সাইফুদ্দিন ও রুবেল হোসেন। গত ম্যাচে ইনজুরির জন্য বাদ পড়া সাইফুদ্দিন এই ম্যাচে ফিরেছেন।