সরল বিশ্বাসে দুর্নীতি করলে সেটা অপরাধ নয়: দুদক চেয়ারম্যান

ফাইল ছবি

বিধি অনুযায়ী সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সরল বিশ্বাসে কোনো দুর্নীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়লে সেটি অপরাধ হবে না বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘প্যানেল কোডেই বলা আছে যে, সরল বিশ্বাসে কৃতকর্ম কোনো অপরাধ নয়। জেনারেল এক্সসেফশন বলে এটাকে। কিন্তু এখানে শর্ত আছে, সরল বিশ্বাসটা যেন উইথ কেয়ার অ্যান্ড কনসাস হয়। আপনাকে প্রমাণ করতে হবে যে সরল বিশ্বাসে আপনি এ কাজটা করেছেন।’

পাঁচ দিনব্যাপী ডিসি সম্মেলনের শেষ দিন বৃহস্পতিবার ডিসিদের সঙ্গে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সংশ্লিষ্ট কার্যঅধিবেশন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি এই তথ্য জানান। তবে অন্যান্য সকল মন্ত্রণালয় ও বিভাগ সম্পর্কিত ৩৩৩টি প্রস্তাব থাকলেও ডিসিদের পক্ষ থেকে দুদকের বিষয়ে কোনো প্রস্তাব ছিল না। এদিকে ডিসিদের প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, মোবাইল কোর্টের জন্য পুলিশের বিশেষ কোনো বাহিনী দেওয়া হবে না।

যা আছে সেটা নিয়ে সমন্বয় করে কাজ করতে বলা হয়েছে ডিসিদের। সরকারি অফিসে দালাল মুক্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ডিসিরা জেলার সার্বিক তত্ত্বাবধায়ন করেন। মাঠপর্যায়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের কার্যক্রমও দেখভাল করবেন। তাই দুর্নীতি দমন কমিশনের কর্মকর্তারাও যদি কোনো অপরাধ করে তাহলে তাদের জানাতে বলা হয়েছে।

দুর্নীতি দমনের বিষয়ে ডিসিদের কোনো প্রস্তাব ছিল না, এ বিষয়ে চেয়ারম্যান বলেন, এটা প্রস্তাবের কিছু নেই। তারাও কাজ করছে, আমরাও কাজ করছি, আপনারাও কাজ করছেন। এখন অনেক প্রস্তাব এসেছে এগুলো খতিয়ে দেখবো। তিনি বলেন, আদালতে যখন বিজ্ঞ আইনজীবীরা বিট করেন, ওনারা কিন্তু কোর্টের অফিসার হিসেবে বিট করেন। আপনারা যারা গণমাধ্যমের কর্মী, আপনারা কিন্তু আমাদেরই অংশ।

আমরা মনে করি আপনারা আমাদেরই কর্মকর্তা, আমরা এটা বিশ্বাস করি এবং আপনাদেরও এই বিশ্বাস রাখতে হবে। দুদক চেয়ারম্যান আরও বলেন, দুর্নীতি প্রতিরোধে দুদকের যে কার্যক্রম রয়েছে সেগুলো ভালোভাবে তাদের বাস্তবায়ন করতে বলা হয়েছে। ডিসিরা আনন্দের সঙ্গে কাজ করতে চেয়েছেন এবং বলেছেন দুর্নীতি প্রতিরোধের জন্য বিশেষ করে প্রাইমারি ও হাইস্কুলে মানসম্মত শিক্ষা, মূল্যবোধসম্পন্ন শিক্ষা যদি না হয় তাহলে উন্নয়ন টেকসই হবে না।

গতকাল বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলনের পঞ্চম দিনের তৃতীয় কার্য অধিবেশনে শেষ সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন ইকবাল মাহমুদ।

তিনি বলেন, ‘আমাদের উদ্দেশ্য মামলা করা নয়, দুর্নীতি প্রতিরোধ করা। দমন তার পরে। দুর্নীতি দমন কমিশনের কার্যক্রম দেখার জন্য আমরা ডিসিদের বলেছি। কোথাও অনিয়ম পেলে আমাদের জানাতে বলেছি।’