কোরবানির মাংস তিন ভাগ করা ইসলামের সৌন্দর্য

আমিন মুনশি: কোরবানির মাংস তিন ভাগে ভাগ করা অপরিহার্য নয়, তবে এভাবে করাটা উত্তম—এমনটাই জানিয়েছেন আলেমরা। অভিজ্ঞ আলেমরা বলছেন, হযরত মুহাম্মদ (স.) কে অনুসরণ করে কোরবানির মাংস তিন ভাগে ভাগ করে দেওয়া সৌন্দর্যের অংশ। এক্ষেত্রে কেউ চাইলে তিন ভাগ নাও করতে পারেন। তাতে ধর্মীয় দৃষ্টিতে কোনও বাঁধা নেই। ইসলামি গবেষণা প্রতিষ্ঠান মারকাযুদ্ দাওয়াহ আল ইসলামিয়ার মাসিক গবেষণাপত্র আল কাউসারে এ বিষয়ে মাওলানা মুহাম্মাদ ইয়াহইয়া লিখেছেন, ‘মাসআলা: ৪৩.

কোরবানির মাংসের এক-তৃতীয়াংশ গরিব-মিসকিনকে এবং এক-তৃতীয়াংশ আত্মীয়-স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশীকে দেওয়া উত্তম। অবশ্য পুরো মাংস যদি নিজে রেখে দেয়, তাতেও কোনও অসুবিধা নেই।’ (বাদায়েউস সানায়ে ৪/২২৪,আলমগীরী ৫/৩০০) কোরবানির মাংস বণ্টনের বিষয়ে মাওলানা মুহাম্মাদ ইয়াহইয়া লিখেছেন, ‘শরিকে (শরিক হিসেবে) কোরবারি করলে ওজন করে মাংস বণ্টন করতে হবে। অনুমান করে ভাগ করা জায়েজ নয়।’ (আদ্দুররুল মুখতার ৬/৩১৭, কাযীখান ৩/৩৫১)