রাস্তায় কিছু সংখ্যক গাড়ি চললেও কমেনি ভোগান্তি

ঘাতক বাসচালকের ফাঁসিসহ ৯ দফা দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে গত কয়েকদিন থেকে অচল রয়েছে ঢাকা। তবে আজ বৃহস্পতিবার সকালে ফাঁকা সড়কে দুএকটি গাড়ি চলতে দেখা গেছে। সেগুলোতে উঠতেও বেগ পেতে হচ্ছে।

সকালে মোহাম্মদপুর, মহাখালী, ফার্মগেট, মিরপুর, টেকনিক্যাল মোড় এলাকাতে গণপরিবহনের তীব্র সংকট দেখা গেছে। মাঝে মাঝে দুএকটি গাড়ি চললেও সেগুলোতে অনেক ঠেলাঠেলি করে উঠতে হচ্ছে অফিসগামীদের। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে তাদের। তবে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় সকালে সড়কে কোনো স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের দেখা যায়নি।

মোহাম্মদপুরের রাবেয়া জানান, তিনি আবদুল্লাহপুর যাবেন। বাসস্টান্ডে গাড়ির ভিড়ে ঠেলাঠেলি দেখে তিনি উঠতে পারছেন না। এমন আরও অনেকের, কর্মস্থল বা গন্তব্যে যেতে বাসের অপেক্ষায় সময় গুনছেন। এতে সবার ভোগান্তী যেন কমছেই না।

এদিকে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আজ সারা দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। বুধবার বিকালে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। পাশাপাশি এ সিদ্ধান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ও।

বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বলছেন, প্রতিবার দুর্ঘটনার পর সরকারের পক্ষ থেকে নানা আশ্বাস দেয়া হয়। সেগুলো বাস্তবায়ন হয় না। তাই আশ্বাস নয়, তাদের দাবি দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে। শিক্ষার্থীরা বলেন, নৌমন্ত্রীর পদত্যাগ এবং ঘাতক চালকের বিচার না হওয়া পর্যন্ত এ আন্দোলন চলবে।

আন্দোলনে বাধা সৃষ্টি করলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হবে বলে হুশিয়ার করে দেন আন্দলোনকারীরা । এদিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর শক্তি প্রয়োগ না করে পরিস্থিতি মোকাবেলার নির্দেশ দিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার। পুলিশের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, পরিস্থিতি সামলাতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গিয়ে স্কুল ও কলেজ বন্ধ রাখার অনুরোধ করছেন পুলিশ।

উল্লেখ্য, রবিবার জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাসচাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই ছাত্রছাত্রীর মৃত্যুর পর থেকে শিক্ষার্র্থীরা আন্দোলনে নামে।