হতাশ করেছে ঈদের তিন সিনেমা

ঈদের সিনেমা সাড়া জাগাতে পারেনি এবারো। সপ্তাহ পার হয়ে গেলেও ঈদে মুক্তি পাওয়া তিন সিনেমা দেখতে ভিড় নেই হলগুলোতে। সিনেমা হল সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেনি শাকিবের ক্যাপ্টেন খানও।

শাকিব খান অভিনীত ক্যাপ্টেন খান ঈদ উপলক্ষে মুক্তি পায় ১৭০ টি সিনেমা হলে। শাকিব খানের সিনেমা মানেই হিট, প্রচুর দর্শক, সিনেমা হল হাউজফুল, কিন্তু এবার চিত্র একেবারেই ভিন্ন। শাকিব অভিনীত একটি সিনেমা মুক্তি পায় এই ঈদে তাই হল মালিকদের আশা ছিল সিনেমাটি ভালো ব্যবস্যা করবে। কিন্তু আশায় গুড়েবালি , হল মালিকদের হতাশ করেছে ক্যাপ্টেন খান।

হল মালিকদের ভাষ্য, শাকিবের একটি সিনেমা মুক্তিতে আমরা বেশ আশাবাদী ছিলাম। সিনেমাটি ভালো ব্যবসা করবে এমনটিই প্রত্যাশা ছিল আমাদের। কিন্তু যে টাকা দিয়ে সিনেমাটি আনা হয়েছে সে টাকা তুলাই এখন দায় হয়ে পড়েছে। এখন পর্যন্ত আমরা হাউজফুল পাইনি, ২য় সপ্তাহে এসে হয়তো দর্শক ৩৫% থাকবে।

এদিকে যেসব দর্শক হলে আসছে তারা ক্যাপ্টেন খান দেখে মুগ্ধ। শাকিব খানের সিনেমা এলেই হলমুখী হন তারা।

শাকিবের সিনেমা মানেই ব্যবসা নিশ্চিত। সে কারনেই বেশি দামে সিনেমা কিনেছেন হল মালিকরা।কিন্তু ক্যাপ্টেন খান কেন হতাশ করছে? অনেকেই মনে করছেন ঈদে দর্শক গ্রামে চলে যাওয়ায় তেমন সাড়া ফেলতে পারেনি। আবার ঢাকায় ফেরার পর কাজে ব্যস্ত হওয়ার কারনে তেমন সময় বের করতে পারছেন না দর্শকরা।

অন্যদিকে ঈদে মুক্তি প্রাপ্ত আরেক সিনেমা মনে রেখোতে জুটি বেঁধে অভিনয় করেছন মাহিয়া মাহি ও বরবাদ খ্যাত কলকাতার অভিনেতা বনি । এই সিনেমাটিও হতাশায় ডুবিয়েছে হল মালিকদের। সিনেমাটি না দেখেই নাকি দর্শক বের হয়ে পড়ছেন। দর্শক ক্ষুদ্ধ কলকাতার নায়ক বনিকে নিয়ে।

অপরদিকে আরেক সিনেমা মাহি ও সাইমন অভিনীত জান্নাত নিয়েও তেমন আশার আলো দেখা যায়নি এখনো। যদিও হল বেড়েছে সিনেমাটির। হল মালিকদের দাবি হাফ টাইম শেষ না হতেই দর্শক বের হয়ে যান।

যদিও এই সপ্তাহে নতুন কোন সিনেমা মুক্তি পায়নি। তাই এই সপ্তাহেও চলবে ঈদের সিনেমাই। আর কিছুদিন পরই জানাযাবে এই সিনেমা গুলোতে লগ্নিকৃত অর্থর কতটা ফেরত পারে প্রযোজকরা। আর কতটাই সাড়া ফেলতে পারে দর্শকদের মাঝে।