‘পেছনের দিনগুলো ভোলা সম্ভব নয়’

আফরান নিশো। মডেল ও অভিনেতা। এবারের ঈদে তার বেশ কয়েকটি নাটক দর্শকনন্দিত হয়েছে। ঈদের নাটক, বর্তমান ব্যস্ততা এবং ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা নিয়ে কথা হলো তার সঙ্গে-

বরাবরই ব্যতিক্রমী চরিত্রে অভিনয় করছেন, নতুন কাজগুলো থেকে কী প্রত্যাশা করছেন?

নির্দিষ্ট ঘরানার চরিত্রে অভিনয় করতে চাই না। ব্যক্তিগতভাবে মনে করি অভিনেতা পরিচালকের সম্পূর্ণ অধীন। তারা যে চরিত্রে আমাকে যেভাবে চাইবেন, সেভাবেই কাজ করি। তবে সৌভাগ্য যে, এখন পর্যন্ত অনেক ভালো নির্মাতার সঙ্গে চমৎকার সব চিত্রনাট্যে কাজ করেছি। এবারের ঈদে মাবরুর রশিদ বান্নাহর পরিচালনায় লালাই নাটকের জন্য প্রশংসা পেয়েছি। সুমন আনোয়ারের নির্দেশনায় জুনিয়র আর্টিস্ট লতিফ নাটকে দর্শকরা ভিন্নভাবে দেখতে পেয়েছে আমাকে। এ ছাড়া আশফাক নিপুণ, মিজানুর রহমান আরিয়ান, জাকারিয়া সৌখিনসহ অনেক পরিচালকের নাটকগুলো দর্শক গ্রহণ করেছে। একজন অভিনেতা হিসেবে এটাই আমার চাওয়া। ভবিষ্যতেও এমন কিছু কাজ করতে চাই, যা দর্শক গ্রহণ করবে।

দীর্ঘদিনের ক্যারিয়ারে অসংখ্য নাটকে অভিনয় করছেন, একঘেয়েমি লাগে না?

কখনোই তা মনে হয় না। একটা কথা আছে- যিনি নির্মাতা তিনি সারাজীবন একটি ভালো সিনেমা নির্মাণের জন্য আজন্ম স্বপ্ন দেখেন। ওই একটি সিনেমা বানাতে গিয়েই তিনি আসলে কয়েকটি সিনেমা বানিয়ে ফেলেন। আমি যেহেতু অভিনেতা, সেহেতু বলব- ওই একটি চরিত্রেই অভিনয় করতে চাই। সেই চরিত্রটা কী আমি নিজেও জানি না। সেটির সন্ধান হয়তো এখনও পাইনি। সেই চরিত্রটিই খুঁজছি। আর সেটা খোঁজার জন্যই অনেক চরিত্রে অভিনয় করে যাচ্ছি।

আপনার সমসাময়িক অনেকেই চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন, কিন্তু চলচ্চিত্রে আপনাকে দেখা যাচ্ছে না কেন?

কারও হয়তো পাঁচ বছর আগে শুরু হবে আবার কারও সেটা শুরু হবে পাঁচ বছর পর। এটা নিয়ে একদমই চিন্তিত নই। কারণ এখন পর্যন্ত চলচ্চিত্রে যে ধরনের কাজের প্রস্তাব পেয়েছি, তা কাজের মতো ছিল না। একজন অভিনেতা হিসেবে আমি চাই ভালো গল্প ও অভিনয়ের সুযোগ। তাই ইচ্ছা থাকলেও এ মাধ্যমে কাজ করছি না।

মডেলিং দিয়ে ক্যারিয়ারের পথচলা শুরু, কিন্তু এ মাধ্যমে এখন নিয়মিত নন।

ভালো লাগা থেকেই এ মাধ্যমে কাজ করেছিলাম। কিন্তু আমার ইচ্ছা ছিল অভিনেতা হওয়ার। সেই ইচ্ছা মনে রেখেই এগিয়ে যাচ্ছি।

অভিনয় জীবনের পেছনের দিনগুলোর কথা মনে পড়ে?

পেছনের দিনগুলো ভোলা সম্ভব নয়। সে সময় হুমায়ুন ফরীদি, রাইসুল ইসলাম আসাদ, শহীদুজ্জামান সেলিমদের দেখে অভিনেতা হওয়ার স্বপ্ন দেখি। তার পর গাজী রাকায়েতের কাছে অভিনয়ে হাতেখড়ি, টিভি বিজ্ঞাপনে কাজ করা- সবই মনে আছে। মাঝে মাঝে মনে হয়, সবেমাত্র অভিনয় শুরু করলাম। এখনও দীর্ঘ পথ পাড়ি দেওয়া বাকি। প্রতিদিন তাই নতুন করে যাত্রা শুরু হয়।