জাজের নায়ক-নায়িকা সবাই চাকরিজীবী : পরীমনি

অভিনয়শিল্পী ও উপস্থাপক শাহরিয়ার নাজিম জয়ের অনুষ্ঠান ‘সেন্স অব হিউমার’-এ অতিথি হয়ে এসে অপ্রিয় সত্য বললেন অভিনেত্রী পরীমনি। উপস্থাপকের এক প্রশ্নের জবাবে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার ব্যানারে কাজ করা নায়ক-নায়িকাদের ‘চাকরিজীবী’ বলে মন্তব্য করেন তিনি। পরী বলেন, ‘এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যারা কাজ করছেন, তারা সবাই চাকরিজীবী নায়ক-নায়িকা।

কারণ একজন নায়ক-নায়িকা তার নিজস্ব পছন্দ এবং গতিধারায় থাকবেন। কোন ছবি করবেন, কোনটি করবেন নাÑ তা একটা প্রতিষ্ঠানের অনুমতি নিয়ে কেন করতে হবে! শিল্পীসত্তার স্বাধীনতা জাজ মাল্টিমিডিয়ার চাকরিজীবী নায়ক-নায়িকাদের নেই।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি জাজ মাল্টিমিডিয়ার সঙ্গে কাজ করছি, দেখা গেল এমন সময় সেলিম ভাই (গিয়াসউদ্দিন সেলিম) একটা ছবি নিয়ে কথা বলতে চাইলেন।

কিন্তু আমি অনুমতি ছাড়া ওই ছবির ব্যাপারে কোনো কথা বলতে পারব না। এমনটা হয়েছে বলেই বলছি। আমি দুই বছর এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ করেছি। আমার স্বাধীনতা বলতে কিছুই ছিল না। আমি যখন কাজ করেছি, তখন নিজেকে চাকরিজীবী নায়িকা মনে করেছি। প্রতি মুহূর্তে আমি তা অনুভব করেছি। সব কিছু এই প্রতিষ্ঠানের অনুমতি নিয়ে করতে হয়।

এটা আমার জন্য খুব কষ্টের অভিজ্ঞতা। কারণ আমি খুব স্বাধীনচেতা একজন মানুষ। ধরেবেঁধে কোনো কাজ আমাকে দিয়ে করানো সম্ভব না। বাধ্য হয়ে কোনো কাজ করতে আমি কখনই রাজি না।’
বাধ্য হওয়ার প্রসঙ্গ আসছে কেন? উপস্থাপকের এমন প্রশ্নে পরীমনি বলেন, “বাধ্য হয়ে তো অবশ্যই। এই যেমন আমাকে বলা হয়েছিল, এই ছয় মাসের মধ্যে প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে দৌড়াতে হবে।

এই এই খাবার খেতে হবে। এসব আমাকে করানো হয়েছিল। তবে ফাইনালি আমার জন্য ব্যাপারটা ভালো হয়েছিল। আমি যে অ্যাকশনধর্মী ছবি করতে পারি, মারামারি করতে পারি, তা ‘রক্ত’ সিনেমায় দর্শক টের পেয়েছেন।” জাজ মাল্টিমিডিয়ার নায়িকা হলে কোনো কথা বলা যায় না।

কিন্তু তিনি এসব মানতেন না বলেই নাকি প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে নিয়মিত কাজ করতে পারেননি। পরীমনি বলেন, “ওই ঘরের নায়িকা হলে কোনো রিঅ্যাক্ট করা যাবে না। আমি রিঅ্যাক্ট করেছিলাম বলে ওই ঘরের নায়িকা হতে পারিনি। ‘রক্ত’ করার সময় আমি মানসিকভাবে ডিস্টার্ব ছিলাম।”