এখনো মাশরাফি কোন সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করলে কঠিন শাসন করেই শুধরে দেন মাশরাফির বাবা

বাংলাদেশের ফিল্ম এর সুপারস্টারদের কয়জন চেনেন। তার থেকে বেশি চিনে বাংলাদেশ জাতীয় দলের হয়ে এক ম্যাচ খেলা কোন ক্রিকেটারকে। ফিল্ম এর সুপারস্টারদের থেকেও অনেক এগিয়ে বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। বাংলাদেশ আইডল বলা হয় সাকিব আল হাসান, মাশরাফি বিন মুর্তজা, মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে।

কিন্তু তারাই যখন বিপথগামী হয়ে ওঠে তখন কি করবে তরুণ ক্রিকেটাররা? বর্তমান সময়ে মাঠের ক্রিকেট থেকে মাঠের বাইরের খবর টাই বেশি হচ্ছে ক্রিকেট পাড়ায়। বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল নিয়ে বাংলাদেশের মানুষের গর্বের শেষ নেই। কিন্তু সেই জাতীয় দলের কিছু ক্রিকেটাররা হয়ে পড়েছে বিপথগামী। বর্তমান সময়ে নাসির হোসেন, সাব্বির রহমান এবং মোসাদ্দেক হোসেনের মাঠের বাইরে খবরে তোলপাড় ক্রিকেট পাড়া।

মাশরাফি, মুশফিক ও তামিম ইকবাল এই ক্রিকেটারদের জীবন দর্শন বিশৃঙ্খলকারি ক্রিকেটারদের আদর্শ হতে পারে। তাদের জীবন দর্শন মানলে ইতিবাচক ভাবমূর্তির ফিরে আনতে পারবে বিপথগামী তরুণ ক্রিকেটাররা। এমনটাই বলছেন আকরাম খান। এদিকে, পরিবারের শাসন আর নিজ থেকে নিয়মানুবর্তিতায় থাকায় মাশরাফি ও মুশফিক আদর্শ মানুষ হতে পেরেছেন। এমনটাই মন্তব্য এই দুই ক্রিকেটারের বাবা গোলম মোর্ত্তজা ও মাহবুব হামিদের।

সন্তানের অর্জন আর শৃঙ্খল জীবনে গর্বিত মাশরাফি মুশফিকদের বাবা-মা। এখনো মাশরাফি কোন সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করলে শাসন করেই শুধরে দেন বাবা গোলাম মোর্ত্তজা। আর মুশফিক/ পরিবারের আদর্শ ধারণ করা ছাড়াও, ছোট বেলা থেকে ছিলেন সু-শৃঙ্খল। খান পরিবারের তিন জন আকরাম নাফিজ ও তামিম ইকবাল বাংলাদেশের হয়ে টেস্ট খেলেছেন। তাই একটু আলাদা করে গর্ববোধ করতে পারেন নাফিজ ও তামিম ইকবালের চাচা আকরাম খান।

ক্রিকেট ক্যানভাসে খেলছেন প্রিয় সন্তান। তাদের ছায়া সঙ্গী হিসেবে মাঠে মা-বাবা। এমন দৃশ্য ঢাকার বেশ কয়েকটি মাঠে দেখা যায় নিয়মিত। কারণ তারা হয়ে চায় ভবিষ্যৎ ক্রিকেটার। এই অভিভাবকদের জোড়ালো দাবি আগামীর প্রজন্মের ক্রিকেটারদের কথা মাথায় রেখে। বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করা ক্রিকেটারদের শাস্তির ব্যাপারে কঠিন নীতিমালা তৈরি করবে ক্রিকেট বোর্ড। সূত্র : সময় টিভি