এই বিধ্বংসী মাহমুদউল্লাহ-ই দলকে প্লেঅফে তুললেন

কালকের ম্যাচ হেরে গেলে অনিশ্চয়তা পড়ে যেত প্যাট্রিয়টসের পরের রাউন্ড। কাজটাও সহজ ছিল না। জ্যামাইকা তালাওয়াশ প্রথমে ব্যাট করে তুলেছিল ২০৬ রান। বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে প্যাট্রিয়টসের নতুন লক্ষ্য নির্ধারিত হয় ১১ ওভারে ১১৮।

ক্রিস গেইলের ২৪ বলে ৪১ আর সমান বলে ফন ডার ডুসেনের ৪৫ রানের ইনিংস দুটি কাজ অনেক সহজ করে দেয়। তবে শেষ পর্যন্ত প্যাট্রিয়টসকে ৫ বল বাকি থাকতেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেয় মাহমুদউল্লাহর ১১ বলে ২৮ রানের বিধ্বংসী ইনিংস। দুটি করে চার ছক্কা মেরেছেন এবারের সিপিএল খেলা একমাত্র বাংলাদেশি প্রতিনিধি।

ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে রোববার জ্যামাইকা তালাহওয়াসকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস প্যাট্রিয়টস। এই জয় নিশ্চিত করেছে তাদের প্লে অফ পর্বে খেলাও।

সেন্ট কিটসের ওয়ার্নার পার্কে এদিন বোলিং পাননি মাহমুদউল্লাহ। রান তাড়ায় দুটি করে চার ও ছক্কায় তার ১১ বলে ২৮ রানের অপরাজিত ইনিংসে দল পার হয়েছে শেষের বৈতরণী।

ম্যাচের প্রথম ভাগে এদিন ঝড় তুলেছিল জ্যামাইকার ব্যাটসম্যানরা। ৪০ বলে ৮৪ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলেন রভম্যান পাওয়েল। গ্লেন ফিলিপস করেন ২৯ বলে ৪০, ডেভিড মিলার ২০ বলে ৩২। জ্যামাইকা ২০ ওভারে তোলে ২০৬ রান।

সেন্ট কিটসের রান তাড়ায় ওপেনার এভিন লুইস ফেরেন রান না করেই। তবে আরেক পাশে ঝড় তোলেন ক্রিস গেইল। তিনে নামা ফন ডার ডুসেনও ছুটতে থাকেন পরিস্থিতির দাবি মিটিয়ে।

তবে বাধা হয় দাঁড়ায় বৃষ্টি। ৬.৩ ওভারে ৬৫ রান তোলার পর খেলা বন্ধ হয় বৃষ্টিতে। আবার যখন খেলা শুরু হলো, ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে সেন্ট কিটসের প্রয়োজন তখন আর ৪.৩ ওভারে ৫৩ রান।

বৃষ্টির পর প্রথম বলেই ছক্কা মেরে শুরু করেছিলেন গেইল। কিন্তু এক বল পরই আউট হয়ে যান ২৪ বলে ৪১ রান করে।

পরের ওভারের প্রথম বলে বেন কাটিং ফিরে যান শূন্য রানে। অ্যাডাম জ্যাম্পার করা ওই ওভার থেকে আসেনি বাউন্ডারি। শেষ ৩ ওভারে সেন্ট কিটসের প্রয়োজন ছিল ৪৩ রান।

সেই সমীকরণ মেলান ফন ডার ডুসেন ও মাহমুদউল্লাহ। ওশান টমাসের ওভারের প্রথম দুই বলেই ছক্কা মারেন ফন ডান ডুসেন। পরের বলে সিঙ্গেল। পরের দুই বলে মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে আসে বাউন্ডারি। শেষ বলে বিশাল ছক্কা। এক ওভারেই ২৭ রান।

পরের ওভারে লেগ স্পিনার জ্যাম্পাকে এক্সট্রা কাভার দিয়ে দারুণ ছক্কায় মাহমুদউল্লাহ অনেকটাই নিশ্চিত করে দেন দলের জয়। শেষ পর্যন্ত সেন্ট কিটস জিতে যায় ৫ বল বাকি রেখেই।