২২ বছরেও হত্যা-আত্মহত্যার দোলাচলে সালমান শাহর মৃত্যুরহস্য

বাংলা চলচ্চিত্রের সবচেয়ে স্টাইলিস্ট নায়ক ছিলেন সালমান শাহ। তার অভিনয় জীবনের চার বছরে ২৭টি ছবিতে অংশ নিয়েছিলেন তিনি। তার অভিনীত প্রায় সবগুলো সিনেমাই ছিল সুপারহিট।

অকাল প্রয়াত নব্বই দশকের এই নায়কের চলে যাবার আজ ২২ বছর। মৃত্যুর এতো দিন পরেও উদ্ঘাটন করা যায়নি তার রহস্য। যদিও শুরু থেকেই সালমানের পরিবারের দাবি আত্মহত্যা নয়, পরিকল্পিতভাবেই হত্যা করা হয়েছে সালমান শাহকে। আর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন, পিবিআই বলছে, তদন্ত শেষ হতে আরও কিছু সময় লাগবে।

সালমান শাহ। বাংলা ছবির ক্ষণজন্মা এক নায়ক। অভিনয় জগতে এসে পেয়েছেন খ্যাতি, সুনাম আর কোটি ভক্তের হৃদয়। নিজের অভিনয় দক্ষতা পোশাকে নতুনত্ব আর আধুনিকতার ছোঁয়ায় হয়েছেন স্বপ্নের নায়ক। পৌঁছেছেন সবার অন্তরে অন্তরে।

ক্যারিয়ার যখন তুঙ্গে ঠিক তখনই রহস্যজনক মৃত্যু। বাংলা চলচ্চিত্রের যুবরাজের মৃত্যুর পর তৈরী হয় নানা প্রশ্ন। ২২ বছরেও অজানা থেকে গেছে সেসব প্রশ্নের উত্তর। ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর এই নক্ষত্রের পতন। ঘটনার পর অপমৃত্যুর মামলা করেন তার বাবা।

যা পরবর্তীতে রূপান্তরিত হয় হত্যা মামলা। চূড়ান্ত রিপোর্ট আসে আত্মহত্যা করেছেন সালমান শাহ। এ নিয়ে রিভিশন দায়ের করেন সালমানের পরিবার। আর তার নিষ্পত্তি হয়নি প্রায় দু’যুগেও। তবে এখনও বিচারের আশায় লন্ডন প্রবাসী সালমানের মা।

ছেলের মৃত্যুবার্ষিকীর আগের দিন গণমাধ্যমকে আবারও জানান, পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ডের শিকার সালমান শাহ। মামলার পরবর্তী তারিখে পিবিআই তদন্ত রিপোর্ট দেবে বলে আশা, সালমান শাহর আইনজীবীর।

তবে পিবিআই প্রধান জানান, আরও কিছু সময় লাগবে মামলাটির তদন্তে। সময় যতই লাগুক মামলাটির শেষ দেখার দৃঢ় প্রত্যয় সালমানের পরিবারের কণ্ঠে। আর এ জন্য সরকারকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়ার আহ্বান সালমানের মায়ের।