সিডনীর বিতর্ক নিয়ে মুখ খুললেন কোহলি

বর্তমান ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম নান্দনিক এক ব্যাটসম্যানের নাম ভিরাট কোহলি। ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটে সমান তালে দাপট দেখিয়ে যাচ্ছেন তিনি। মাঠের পারফর্মেন্সে ভিরাট নিয়মিত প্রশংসা কুড়ালেও বিভিন্ন সময় তার আক্রমণাত্মক আচরণের দায়ে হয়েছেন সমালোচিত ও বিতর্কিত।

বর্তমান ভারতীয় অধিনায়ক সবচেয়ে বড় বিতর্কের মুখে পড়েছিলেন ২০১২ সালের অস্ট্রেলিয়া সিরিজে। মাইকেল ক্লার্কের একটি শর্ট সীমানা পেরুনোর পর, বাউন্ডারি লাইনের পাশে দাঁড়ানো কোহলি গ্যালারি দর্শকদের দিকে উদ্দেশ্যে মধ্যাঙ্গুলি দেখান। যা ক্যামেরার নজর এড়িয়ে যেতে পারেনি।

সেই কান্ডে তোপের মুখে পড়া ভিরাট পরে টুইটারে এক বার্তায় জানান দর্শকরা তার মা ও বোনকে গালাগাল দিয়েছিল। তার প্রেক্ষিতেই এমন করা। তখন তার আইপিএল সতীর্থ কেভিন পিটারসেন ও বলিউড তারকা অমিভাত বচ্চন সহ অনেক তারকা তার পাশে দাঁড়ান।

পাশাপাশি অনেকে তাকে এমন ঘটনা গুলো পরবর্তীতে এড়িয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। সেই ঘটানায় চোখ এড়িয়ে যায়নি ম্যাচের আম্পায়ার রঞ্জন মাদুগালের। সম্প্রতি উইজডেন ক্রিকেটকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সেই ঘটনার কাহিনীই তুলে ধরেছেন ভিরাট।

তিনি বলেন, “এটা সবচেয়ে স্মরণীয় যে যখন আমি সিডনীতে (২০১২) দর্শকদের উদ্দেশ্যে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েছিলাম। তার পরেরদিন তখনকার ম্যাচ রেফারি রঞ্জন মাদুগালে আমাকে তার রুমে ডেকে নিয়ে বলল, কি সমস্যা? গতকাল সীমানায় কি ঘটেছিল?”

“আমি খুব শান্ত ভাবে বললাম কিছুই না, এটা একটা ঠাট্টা ছিল। তারপর তিনি আমার সামনে আমার বড়বড় ছবিতে ছাপা পত্রিকা দেখালেন। তখন আমি বললাম, ‘আমি দুঃখিত, দয়া করে আমাকে নিষেধাজ্ঞা দিবেননা !’ পরে আমি চলে এলাম। তিনি একজন ভালো মানুষ ছিলেন, বুঝতে পেরেছিলেন যে আমি তরুণ তাই এই এমনটা ঘটেছে।” পাশাপাশি মাঠে তার আক্রমণাত্মক মনোভাব নিয়েও কথা বলেনে ভারতীয় অধিনায়ক। তিনি কোনো ভাবেই চান না নিজেকে বদলাতে। যেভাবেই হোক মাঠে তিনি প্রতিপক্ষকে জবাব দিতে চান।

কোহলির ভাষায়, “আমি যখন তরুণ ছিলাম তখন যা কিছু করেছি তা ভাবলে সত্যিই এখনো হাসি পায়। কিন্তু আমি গর্বিত যে আমি নিজেকে পরিবর্তন করিনি এবং নিজেকে বিশ্বের কারো জন্য পরিবর্তন করত চাই না। আমি নিজেকে নিয়ে খুশী ছিলাম এখনো আছি।”