তরুণদের যথেষ্ট সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না : ওয়ালশ

বাংলাদেশের ক্রিকেটে যদি ধারাবাহিক দুজন পেসারের কথা বলা হয়, তবে উঠে আসবে ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা এবং রুবেল হোসেনের নাম। ‘কাটার মাস্টার’ মুস্তাফিজুর রহমান ইনজুরির সঙ্গে লড়াই করে চলছেন এখনও। স্বরূপে কবে ফিরবেন তা অজানা। মাশরাফি-রুবেল পরবর্তী যুগে বাংলাদেশ কি তবে পেসার সংকটে পড়ে যাবে? বাংলাদেশে পেস প্রতিভার অভাব দেখছেন না কোর্টনি ওয়ালশ। তাদের শেখার আগ্রহেও কমতি নেই। কিন্তু তরুণদের কি যথেষ্ট সুযোগ দেওয়া হচ্ছে?

বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচ হিসেবে দুই বছর কাটিয়ে দেওয়া ক্যারিবীয় কিংবদন্তি মনে করেন, তরুণ ক্রিকেটারদের জাতীয় দলে ধারাবাহিকভাবে সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না। আজ শনিবার মিরপুর শের-ই-বাংলায় সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আমি বলব না যে, ওদের ক্ষুধা নেই। আমার মনে হয় ওদের যথেষ্ট ধারাবাহিক ভাবে সুযোগ দেওয়া হয়নি। তরুণদের যথেষ্ট সুযোগ দিতে হবে। একটি-দুটি ম্যাচ খেলিয়েই বাদ দেওয়া যাবে না।’

গত দুই বছরে বাংলাদেশের ক্রিকেটে ওয়ালশের অবদান অস্বীকার করার উপায় নেই। তিনি যাদের নিয়ে স্বপ্ন দেখছেন, তাদের হয়তো দলেই নেওয়া হয় না। ওয়ালশের প্রশ্ন, সুযোগ না দিলে একজন তরুণ ক্রিকেটার কীভাবে নিজেকে প্রমাণ করবে? এক ম্যাচ দুই ম্যাচ খেলিয়ে বাদ দেওয়াটা তো পর্যাপ্ত সুযোগ নয়।

ওয়ালশের ভাষায়, ‘আমার মনে হয়, আমরা তরুণদের সুযোগ দিতে একটু বেশিই ভয় পাই। কিন্তু আমরা যদি ওদের শুধু অপেক্ষায় রাখি এবং খেলার সুযোগ না দেই, তাহলে তো লাভ নেই। যত খেলবে ওরা, তত শিখবে। খেললেই অভিজ্ঞতা বাড়বে। দলে না নেওয়া হলে তো বোঝা যাবে না তারা কেমন। ওরা প্রস্তুত নয় বলে যদি সুযোগ না দেওয়া হয়, তাহলে তো ওরা কখনোই প্রস্তুত হবে না। আমার মনে হয়, এদিকটায় আমাদের আরেকটু বেশি মনোযোগ দেওয়া উচিত।’

এক-দুই ম্যাচ খারাপ খেললেই বাদ দেওয়ার সংস্কৃতিটা পছন্দ নয় ওয়ালশের। তার ভাষায়, ‘পারফরম্যান্স ভালো-খারাপ হবেই। কিন্তু একটু খারাপ করলেই সবাই বাদ দিতে উঠে পড়ে লাগে। এসবে বেশি লাভ হবে না। কেউ খারাপ করলে শোধরানোর সুযোগ দেওয়া উচিত। যে তরুণ ক্রিকেটারদের আমি দেখেছি, ওরা যথেষ্ট আগ্রহী, শিখতে চায়, পারফর্ম করতে চায়। ওদেরকে সুযোগটা দিতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘দূর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা টেস্ট ক্রিকেট খুব বেশি পাই না। এই যুগে সফরে গেলেও চারদিনের ম্যাচ খুব বেশি পাওয়া যায় না। আমার মনে হয়, কিছু উন্নতি হয়েছে। বেশ কজন ভালো তরুণ পেসার উঠে আসছে। আগেও বলেছি, আমার দায়িত্ব শেষে বাংলাদেশের পেস বোলারদের আমি অনেক উন্নতি করতে দেখতে চাই। আশা করি, সামনের সময়গুলোতে দল নির্বাচন থেকে শুরু করে সবকিছু ঠিকঠাক হবে। আমি এখনও আশাবাদী।–কালের কণ্ঠ অনলাইন