আমাকে হয়রানির জন্যই মামলায় জড়ানো হয়েছে : ন্যানসি

কণ্ঠশিল্পী ন্যানসি ও তার ছোট ভাই শাহরিয়ার আমান সানির বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।সানির স্ত্রী সামিউন্নাহার শানু বাদি হয়ে গত বৃহস্পতিবার ৬ সেপ্টেম্বর রাতে নেত্রকোনা মডেল থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় নেত্রকোনা সদর থানার সাতপাই এলাকার নিজ বাসা থেকে সানিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।নেত্রকোনা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ বোরহান উদ্দিন খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, শাহরিয়ার আমান সানির বিরুদ্ধে গত ৬ সেপ্টেম্বর রাতে তার স্ত্রী সামিউন্নাহার শানু বাদী হয়ে যৌতুকের জন্য তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ এনে ১১(খ) ধারায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন।

একই মামলায় ন্যানসি ও তার স্বামী নাজিমুজ্জামান জায়েদকে নির্যাতনে উস্কানি দেওয়ার অভিযোগ করা হয়।এ সম্পর্কে কণ্ঠশিল্পী ন্যানসি দৈনিক আমাদের সময় অনলাইনকে বলেন, ‘আমার নামে বানোয়াট, মিথ্যা বলা হয়েছে। সানী আমার ভাই এটা অস্বীকার করার উপায় নাই।

আর আমার ভাই ব্যক্তিজীবনে কিছু করে থাকলে সেটার দায়ভার কি আমার? ওরা জানে আমার ভাইয়ের বিরুদ্ধে কিছু করলে আমি পাশে দাঁড়াবো। তাই আমার নামেও মামলা করেছে। সানী শুধু আমার ভাই নয় আরও একজনের ভাই। কই তার নামেতো মামলা দেওয়া হয়নি।

সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবেই আমার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে’।ন্যানসি আরও বলেন, ‘আমাকে হয়রানি করার জন্যই মামলায় জড়ানো হয়েছে। আমার ভাইয়ের সঙ্গে তার বনিবনা হচ্ছিলো না। মেয়েটা প্রচুর লোভী। বিয়েটাও একটা ব্ল্যাকমেইলের মাধ্যমে হয়েছে।

মেয়ের পরিবারের আর্থিক অবস্থা এত ভালো নয় যে, আমরা যৌতুকের জন্য চাপ দেব। তারা আমাদের কি যৌতুক দেবে? যৌতুক নেওয়ার মতো আমাদের মানসিকতা হলে আমরা ধনী ঘরে ভাইকে বিয়ে করাতাম।

আর ডিভোর্স পাওয়ার পর তার মনে হলো তাকে নির্যাতন করা হয়েছে, তার আগে এমন মনে হয়নি কেন? সেতো আমার সঙ্গে সংসার করে না, সে সংসার করে আমার ভাইয়ের সঙ্গে। তাহলে আমাকে কেন মামলায় জড়নো হলো। তারা নেত্রকোনা থাকে।

আমি ঢাকায় থাকি আর ময়মনসিংহে থাকি। আর আমার স্বামীকেও মামলায় জড়ানো হয়েছে। এ থেকেই বোঝা যায় কতোটা ষড়যন্ত্র করেছে আমার বিরুদ্ধে’।