‘গোলকিপার আমাদের সেমিফাইনাল খেলতে দিল না’

নেপালের সঙ্গে ২-০ গোলে হেরে বাংলাদেশের সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জয়ের স্বপ্ন শেষ হয়ে যায়। বাংলাদেশের সমর্থকরা এই হার সহজভাবে নিতে পারছেন না। বিশেষ করে বাংলাদেশের গোলকিপার শহিদুল আলম সোহেলের মারাত্মক ভুলকে ক্ষমার অযোগ্য হিসেবে দেখছেন সমর্থকরা।

এই হার কিছুতেই মেনে নিতে পারছে না বাংলাদেশের সমর্থকরা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সমালোচনার ঝড় তুলেছে সমর্থকরা। বাংলাদেশের একজন ফুটবলপ্রেমী তাঁর স্ট্যাটাসে লিখেন `গোলকিপার সোহেল আমাদের সেমি-ফাইনাল খেলতে দিল না`।

সাফ ফুটবল শুরু হওয়ার পর আগে থেকেই এই সোহলকে নিয়ে ওঠে সমালোচনার ঝড়। এই সোহেলের কারণেই সাফ ফুটবল শুরু হওয়ার আগে প্রস্তুতি ম্যাচে নীলফামারীতে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে হারতে হয়েছিল বাংলাদেশকে। এমনকি ২০১৫ বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের ফাইনালে হারের পেছনেও এই সোহেলকে দায়ী করেন অনেকেই।

এশিয়ান গেমসে বাংলাদেশ যে ইতিহাস গড়েছিল সেই দলের গোলরক্ষক হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন দেশের এক নম্বর গোলরক্ষক আশরাফুল ইসলাম রানা। তাঁকেই কিনা বাদ দিয়ে একাদশ সাজিয়েছেন কোচ জেমি ডে। তাঁর জায়গায় দলে সুযোগ পেলেন সোহেল। যে কিনা বাংলাদেশ ক্যাম্পেই ছিলেন না। যেই গোলরক্ষককে কাতার, দক্ষিণ কোরিয়া ও ইন্দোনেশিয়ার ক্যাম্পেই রাখেননি কোচ, সেই গোলকিপার কিনা সরাসরি সাফ টুর্নামেন্টের সেরা একাদশে জায়গা করে নিলেন। শ্রীলঙ্কার সঙ্গে বাজেভাবে গোল হজমের পর তাঁকে নিয়ে আবারো সমালোচনার ঝড় ওঠে।

এতোকিছুর পরও বাংলাদেশের কোচ জেমি ডে তাঁকে সুযোগ দিয়েই যাচ্ছিলেন। আজকের ম্যাচের আগে বাংলাদেশের সামনে ছিল সহজ হিসাব। জিতলে কিংবা ড্র করলেই সেমি ফাইনাল নিশ্চিত হয়ে যাবে বাংলাদেশের। এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচেই কিনা প্রায় ৪০ গজ দূর থেকে নেয়া শটটি সোহেলের হাতে এসে পড়লেও বল চলে যায় জালে।

একের পর এক ভুলের পরেও সোহেলকে সুযোগ দেয়া হয়েছে। দেশের এক নম্বর গোলকিপার যার হাত ধরে এশিয়ান গেমসে ইতিহাস রচনা করেছে বাংলাদেশ। তাঁকেই কিনা দলের বাইরে রেখেছেন কোচ! সোহেলের অন্তর্ভুক্তির কি কারণ প্রশ্ন করা হলে উত্তর দিতে পারবেন তো কোচ জেমি ডে?-বাংলা ইনসাইডার