কোহলিকে রোগ সারানোর ওষুধ দিলেন গাঙ্গুলী

দক্ষিণ আফ্রিকার পর ইংল্যান্ডের মাটিতেও টেস্ট সিরিজ হার ভারতের। স্বভাবতেই কোহলির নেতৃত্ব, দল নির্বাচন ও টিম ম্যানেজমেন্টের ভূমিকা নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করে দিয়েছে। কখনও পূজারাকে দলের বাইরে রেখেছেন কোহলি, কখনও আবার ভুল পিচ রিডিং করে সিমিং উইকেটে জোড়া স্পিনার খেলিয়ে ডুবেছেন। সিরিজ হারের পর সাংবাদিকের প্রশ্ন শুনে কনফারেন্স রুমে কোহলিকে রেগে যেতেও দেখা গেছে।

এমতাবস্থায় তার প্রতি উপদেশমূলক বক্তব্য দিলেন সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলী, ‘সতীর্থদের বোঝ, তাঁদের থেকে সেরাটা বের করে আনো।’

সামনেই দেশের মাঠিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং তারপর আবারও অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে খেলতে যেতে হবে বিরাট কোহলির ভারতকে। ব্রড-অ্যান্ডারসনদের সিমিং উইকেটের পর ক্যাঙ্গারুর দেশে এবার গতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নামতে হবে কোহলি-রাহানে-পূজারাদের। তার আগে দল নিয়ে কোহলিকে ভাবনা চিন্তা করতে পরামর্শ দিচ্ছেন সৌরভ।

সিরিজে ভারতের ব্যাটিং ব্যর্থতা নিয়ে নানা মহলে সমালোচনার ঝড় বয়ে গেছে। কোহলি সফল হলেও অন্যরা ধারাবাহিক নয়, সে কারণে নটিংহ্যামে কামব্যাক করেও পরের দুই টেস্টে লড়াই করেও হারতে হয়েছে ভারতকে। শেষ টেস্টে ১৪৯ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেছেন ওপেনার লোকেশ রাহুল। অন্যদিকে মিডল অর্ডারে সেঞ্চুরি পেয়েছেন উইেকটকিপার ব্যাটসম্যান ঋষভ পন্ত। দলে যে প্রতিভার অভাব নেই , এই পারফর্ম্যান্সগুলো থেকে সেকথা বলছেন সৌরভ।

‘প্রিন্স অফ ক্যালকাটা’ সঙ্গে জুড়েছেন, ‘কোহালির দলের এখন সামনের দিকে তাকানো উচিত। প্রত্যেক দলের মধ্যে প্রচুর প্রতিভা ও সম্ভবনার মিশেল থাকে। অধিনায়কের কাজ হল সেই প্রতিভাগুলো খুঁজে সতীর্থদের থেকে সেরাটা বের করে আনা।’

বর্তমান অধিনায়কের উদ্দেশ্যে সৌরভ আরও বলেছেন, ‘ইংল্যান্ডের মাটিতে রাহানে, পূজারা, রাহুলরা যে ব্যাটিংটা করেছে, এর চেয়ে ওরা ১০ গুণ ভালো ক্রিকেটার। অধিনায়ককে তার দল চিনতে হবে, সতীর্থদের থেকে সেরাটা বের করে আনাই দক্ষ ক্যাপ্টেনের পরিচয়। সতীর্থের কাঁধে ক্যাপ্টেনের হাত থাকলে সেই ক্রিকেটারের পারফর্ম্যান্সে ফারাক আসতে বাধ্য। প্রতিভার অন্বেষণ করাটা খুব জরুরী।’

ব্যর্থতার ফাঁকেও সিরিজ থেকে ভারতের সেরা প্রাপ্তি তরুণ ঋষভের ব্যাটিং। সেই সঙ্গে অভিষেক ম্যাচেই কোহলিকে ভরসা দিয়েছে হনুমা বিহারির মতো ক্রিকেটার। অনেকেই মনে করছে ব্যর্থ ধাওয়ানের পরিবর্তে ওভাল টেস্টে পৃথ্বীকে খেলালে তারও একটা পরীক্ষা হয়ে যেত। প্রতিভা খোঁজা ও তাকে সঠিকভাবে ব্যবহার করার ক্ষেত্রে কোহলি অতীতে দূরদর্শীতার পরিচয় দিয়েছেন। ভারতীয় ক্রিকেটের কঠিন মুহূর্তে সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে কোহলি এবার বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দেন কিনা, সেটাই এখন দেখার বিষয়।