রাত পেরোলেই বড় একটি মিশনে নামছে বাংলাদেশ

রাত পেরোলেই বড় একটি মিশনে নামছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। এশিয়া কাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ দল। এই ম্যাচটি কে অনেক গুরুত্ব সরকারি দেখছেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। সাংবাদিকদের গতকাল শুক্রবার মাশরাফি বলেন, “ প্রতিপক্ষ ভারত-পাকিস্তান থাকলেও জেতার ওই ইচ্ছেটা একই রকম থাকত। কাল অনেক বড় ম্যাচ। হারলে দ্বিতীয় ম্যাচেও সুযোগ থাকবে।

তবে যদি প্রথম ম্যাচে ভালো করতে পারি আমাদের জন্য ভালো হবে। দ্বিতীয় ম্যাচটা আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে খেলতে পারব। প্রথম ম্যাচটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর এবার টুর্নামেন্টের ফরম্যাটও অন্যরকম। গ্রুপ পর্বে খেলে আবার চারটা দলকে খেলতে হবে। সূচিটাও দেখেন, টানা খেলা। এই টুর্নামেন্টে অনেক চ্যালেঞ্জ। প্রথম ম্যাচটা ভালো করলে সবদিক দিয়ে মানিয়ে নিতে সহজ হবে।’

প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা ছাড়াও বাংলাদেশকে আরও দুটি বিষয় নিয়ে ভাবতে হচ্ছে। আগ থেকেই আঙুলের চোটে পড়া সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল শতভাগ ফিট নন। তবুও তাঁদের ধরেই নিশ্চিত একাদশ সাজাবে টিম ম্যানেজমেন্ট। দুজনই যে খেলতে উন্মুখ। সাকিব-তামিম খেললেও বাংলাদেশকে চ্যালেঞ্জ জানাবে দুবাইয়ের কন্ডিশন-উইকেট। বাংলাদেশ নিয়মিত অনুশীলন করেছে আইসিসি ক্রিকেট একাডেমি মাঠে।

যে মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ, সেটির উইকেট মাশরাফি বাদে দলের আর কারও দেখার সুযোগ হয়নি। মাশরাফি তবুও আশাবাদী, ভালো করতে হলে এসব চ্যালেঞ্জ নিয়েই খেলতে হবে, ‘গরম অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ নিয়ামক। আফগানিস্তান-পাকিস্তানের জন্য হয়তো সহজ হবে। তারা এখানে সব সময়ই খেলে। শ্রীলঙ্কা কিছুদিন আগে টেস্ট সিরিজ খেলে গেছে।

তারা হয়তো কিছুটা হলেও আন্দাজ করতে পারবে। এখানকার উইকেট-আবহাওয়ার সঙ্গে আমরা অভ্যস্ত নই। আমাদের এই দলটা প্রথমবারের মতো এখানে খেলতে এসেছে। পিএসএলে আমাদের দু-একজন খেলেছে। এসব আমাদের হাতে নেই। তার মানে এই নয় যে এসব নিয়ে পড়ে থাকব। আমাদের ইতিবাচক থাকতে হবে। এগুলো মানিয়ে নিতে পারলে ভালো দল হয়ে ওঠা যাবে।’