এশিয়া কাপের যে রেকর্ডে সবার উপরে বাংলাদেশ!

আজ শনিবার (১৫ সেপ্টেম্বর)  পর্দা উঠতে যাচ্ছে এশিয়া কাপের। ২৩ বছর পর সংযুক্ত আরব আমিরাতে ফিরে এসেছে এশিয়া কাপ। যদিও স্বাগতিকরা সুযোগ পায়নি এশিয়া কাপে। দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে গ্রুপ ‘বি’ এর দুই দল বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা মুখোমুখি হবে টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে পাঁচটায়।

এশিয়া কাপের তৃতীয় আসরের (১৯৮৮ সাল) আয়োজন করেছিল বাংলাদেশ। অবশ্য ঘরের মাঠে সেবার প্রথম আয়োজনে কোনো জয় মেলেনি স্বাগতিকদের। এর প্রায় এক যুগ পর ২০০০ সালে দ্বিতীয়বার এশিয়া কাপের আয়োজন করে বাংলাদেশ।

এরপর ২০১২ সাল থেকে টানা তিনবার (২০১২, ২০১৪ ও ২০১৬) এই টুর্নামেন্ট বাংলাদেশ অনুষ্ঠিত হয়। সবমিলিয়ে পাঁচবার এই টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে ২০১২ ও ২০১৬ সালে ফাইনালে গিয়ে হারতে হয়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশকে। তবে ২০১৪ সালে ঘরের মাঠে একটি ম্যাচেও জয় পায়নি সাকিব-তামিমরা।

এরপরেই রয়েছে শ্রীলঙ্কা।সবমিলিয়ে চারবার এই টুর্নামেন্টের আয়োজন হয় শ্রীলঙ্কায়। ১৯৮৬ সালে প্রথমবারের মতো আসরের আয়োজন হয়েছিল সেখানে। এরপর ১৯৯৭ সালে দ্বিতীয়, ২০০৪ সালে তৃতীয় ও ২০১০ সালে চতুর্থবারের মতো এশিয়া কাপ আসর অনুষ্ঠিত হয় সেখানে

এশিয়া কাপ আসরের সবচেয়ে কম আয়োজন করেছে ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম সেরা দুই দল ভারত ও পাকিস্তান। দুটি দলই একবার করে এই আসরের আয়োজন করেছে। ১৯৯০ সালে ভারত এবং ২০০৮ সালে এই টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছিল পাকিস্তান।

এদিকে, এশিয়া কাপের আগে ট্রফি উন্মেচন নিয়ে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য দিলেন মাশরাফি। এই ব্যাপারে তিনি বলেন ,’ ‘এই আসর সবগুলো দলের জন্যই বেশ গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের জন্যেও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের হোমওয়ার্ক (প্রস্তুতি) ভাল, আশা করি ভাল করব। প্রথম ম্যাচ শ্রীলংকার বিপক্ষে। ওই ম্যাচের দিকেই তাকিয়ে আছি।’

তিনি আরো বলেন ,’ ‘বিশ্বকাপ এখনো অনেক দূরে, এখনো দশ মাস বাকী প্রায়। এশিয়া কাপের ব্যাপারে আমি বলব, সবাই এই আসরে জিততে ভালবাসে। এই আসরের পরে এক এক জনের দৃষ্টি ভঙ্গি হবে এক এক রকম।’