সাজগোজের যে ৮টি বিষয় প্রত্যেক নারীর জেনে রাখা প্রয়োজন

নারীদের রমনীয় কিছু গুণ থাকা আবশ্যক। নারী মানেই সুন্দরের প্রতিচ্ছবি। নারীরা স্বাভাবিকভাবেই অনেক গোছানো হয়ে থাকেন। তবে ক্ষেত্র বিশেষে অনেক নারীই অগোছালো হয়ে থাকেন। নারীরা সাজতে অনেক পছন্দ করে থাকেন। এ কারণে সাজগোজের ব্যাপারে অনেক নারীই বেশ সচেতন থাকেন এবং নিখুঁতভাবে সাজতেও পারেন। সাজগোজের ব্যাপারে এমনই ৮ টি বিষয় অবশ্যই প্রত্যেকটি নারীর শিখে রাখা প্রয়োজন।

১. লিপস্টিক দেয়া :
এমন অনেক নারীই আছেন যারা সুন্দরভাবে লিপস্টিক দিতে পারেন না। লিপস্টিক দিতে গেলেই ছড়িয়ে ফেলেন। ঠোঁটের বাহিরের অংশেও লাগিয়ে ফেলেন। আবার লিপ লাইনার ব্যবহার করতেও পারেন না। ঠোঁটের উপরে নিচে ছড়িয়ে যায়। এই বিষয়টি প্রত্যেকটি নারীরই শিখে রাখা উচিৎ কেননা মুখের অনেক সৌন্দর্যই লুকিয়ে থাকে এই ঠোঁটে। এটিই যদি পঁচাভাবে সাজানো হয় তাহলে সমস্ত সৌন্দর্যই নষ্ট হয়ে যায়।

২. আই লাইনার দেয়া :
চোখ সাজাতে প্রত্যেক নারীই অনেক পছন্দ করেন। চোখ এমন একটি অঙ্গ যেটির উপরেই সমস্ত মুখের সৌন্দর্য নির্ভর করে। চোখ আঁকা ভালো না হলে পুরোপুরি দেখতে একেবারেই ভালো লাগে না। চোখ ভালো করে আঁকতে পারলে পুরো চেহারাই পরিবর্তিত হয়ে যায়। অনেকে চোখ কাজল দিয়ে আঁকেন, অনেকে আঁকেন আই লাইনার দিয়ে। প্রতিটা নারীর অবশ্যই চোখে আই লাইনার দেয়া শেখা উচিৎ। ভালোভাবে খেয়াল করে লাইনার দেয়া, দুই চোখে সমানভাবে টানা, প্রয়োজনে শ্যাডোর ব্যবহারও জানা উচিৎ। তা না হলে যেকোনো পার্টিতে সমস্যায় পড়তে হতে পারে।

৩. নেইলপলিশ দেয়া :
কোনো মেয়ে যদি বলে আমি নেইল পলিশ দিতে পারি না তাহলে বিষয়টি হাস্যকর শোনাবে। নেইল পলিশ খুব নারীই আছেন যাদের পছন্দের না। এখন অনেকভাবে নারীরা নেইল পলিশ দিয়ে থাকেন। ওয়াটার কালারের উপরে বিভিন্ন ডিজাইন করে থাকেন। প্রতিটা নারীরই উচিৎ এই ডিজাইনগুলো শেখা এবং নিজের নখে অ্যাপ্লাই করা।

৪. নখ কাটা :
নখ কাটতে পারেন না এমন কম নারীই আছেন। তবে এমন অনেক দুলালী আছেন যারা সত্যিই নখ কাটতে পারেন না। নখ কাটতে গিয়ে নখ ভেঙ্গে ফেলেন। আবার ডিজাইন করে কাটতে তো আরও পারেন না। এখন বিভিন্ন ডিজাইনে নারীরা নখ কেটে থাকেন যেমন চতুর্ভূজ আকারের। প্রত্যেকটি নারীর উচিৎ সুন্দরভাবে নখ কাটতে শেখা।

৫. পিন আপ করা :
শাড়ি পড়তে গেলে নারীদের অনেক পিন আপ করতে হয় যেন শাড়িটি ঠিকভাবে শরীরে লেগে থাকে। অনেক নারীই আছেন যারা এই পিন আপ করতে পারেন না। তাদের অনতিবিলম্বে এই পিনআপ করা শিখে ফেলা উচিৎ। এটা এমন কোনো কঠিন কাজ নয়।

৬. শাড়ি পরা :
শাড়ি পরা একটা আর্টের বিষয়। শাড়ি পরতে পারেন না এমন অনেক রমনীই আছেন। এখন অবশ্য কোনো ধরনের অনুষ্ঠান ছাড়া নারীরা খুব একটা শাড়ি পরেন না। তারা সালোয়ার কামিজ পরতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে থাকেন। তবে শাড়ি পরা প্রতিটি মেয়েরই শিখে ফেলা উচিৎ। শাড়ি পরতে না পারাটা খুব ডিজক্রেডিটের একটা বিষয় হতে পারে। এ কারণে প্রতিটি নারীরই উচিৎ জানা কিভাবে শাড়ি পরতে হয়।

৭. মেক আপ করা :
সব সময় তো পার্লারে যাওয়া সম্ভব হয়ে ওঠে না। এছাড়া নরমাল পার্টি মেকআপ নিজে করাটাই ভালো। এতে করে আপনি ঠিক যেমনটা চাইছেন তেমনভাবেই মেকআপ করতে পারবেন। কম-বেশি হবে না। এজন্য প্রতিটি নারীরই উচিৎ মেকআপ করতে পারা।

৮. চুল বাঁধা :
অনেকেই চুল বিভিন্ন স্টাইলে একেবারেই বাঁধতে পারেন না। এজন্য সম্পূর্ণটাই নির্ভর করেন পার্লারের উপরে। কিছু প্রতিটি নারীরই উচিৎ স্বাভাবিক কিছু চুলের বাঁধন শিখে ফেলা যেন পার্লারের পরিবর্তে ঘরে বসেই চুল বেঁধে ফেলতে পারেন। সব ধরনের চুল বাঁধা না হলেও কিছু চুল বাঁধা শিখে ফেলতে পারেন যেগুলো দিয়ে মোটামুটি কোনো অনুষ্ঠানে চালিয়ে নিতে পারেন।