যখনই তামিমকে দেখলাম ব্যাট হাতে মাঠে নামছে, তখনই আমার সাহস বেড়ে গিয়েছিল : মুশফিকুর রহিম

ইতিহাস হয়ে রয়ে গেল গতকাল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের এশিয়া কাপের ম্যাচ। দলীয় ২২৯ রানের মাথায় মোস্তাফিজুর রহমান আউট হলে শ্রীলঙ্কার জন্য টার্গেট দাঁড়ায় ২৩০ রানে। সবাই তখন জানা হয়ে গেছে এশিয়া কাপ থেকে ছিটকে পড়েছেন তামিম ইকবাল। আটটায় ব্যাটিংয়ের তিনি আসছেন না। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিলেন তামিম ইকবাল। অবাক হয়েছেন এ দিন মুশফিকুর রহিম ও।

তামিম ইকবাল স্লিং থেকে হাত খুলে, গ্লাস কেটে সেট করে হাতে লাগিয়ে মাঠে নামবেন, এটা কল্পনাও করতে পারেননি মুশফিকুর রহীম। মোস্তাফিজুর রহমান যখন রানআউট হয়ে গেলেন, তখন বাংলাদেশের রান ২২৯। ওই অবস্থায় বাংলাদেশের স্কোর শেষ হয়ে যাওয়ার কথা। শ্রীলঙ্কার সামনে লক্ষ্য দাঁড়ানোর কথা ২৩০ রানের। খুবই সহজ লক্ষ্য হয়তো হতো।

কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে মাঠে নামলেন তামিম। ব্যাট করলেন এক হাতে। সঙ্গ দিলেন মুশফিককে। যে উদ্দেশ্যে মাঠে নামা, সেটা পুরোপুরি করে দিয়েছিলেন মুশফিক। ৩২ রান যোগ করেছেন তিনি। মারমুখি ব্যাটিং করে বাংলাদেশকে পৌঁছে দিয়েছেন ২৬১ রানের চ্যালেঞ্জের চূড়ায়। তামিমের এই দুঃসাহসী সিদ্ধান্তে প্রশংসার জোয়ারে ভাসছেন তিনি।

দেশের টানে তামিমের এই বীরত্বে ফেসবুক এবং টুইটারে প্রশংসা করছেন ক্রিকেট ভক্তরা থেকে শুরু করে সাবেক ক্রিকেটাররা। সেই তালিকায় যোগ দিয়েছেন গত ম্যাচের ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ নির্বাচিত হওয়া মুশফিকুর রহিম। তামিমকে ব্যাট হাতে নামতে দেখে অবাক হয়েছেন তিনি। শুধু তাই নয় তামিমকে একসাথে দেখে সাহস পেয়েছিলেন।

ম্যাচ শেষে পুরস্কার নিতে গিয়ে তামিম ইকবালকে নিয়ে মুশফিকর রহিম বলেন, “যখনই তামিমকে দেখলাম ব্যাট হাতে মাঠে নামছে, তখনই আমার সাহস বেড়ে গিয়েছিল। মনে মনে সংকল্প করে ফেললাম, তার জন্য এবং দেশের জন্য কিছু করে দেখাতে হবে আমাকে।’

এইটাকেই নিজের সেরা ইনিংস হিসেবে উল্লেখ করলেন মুশফিক। তিনি বলেন, ‘সম্ভবত এটাই আমার সেরা ব্যাটিং। কারণ, আমার শট খেলা এবং উইকেটের মধ্যে দৌড়ানো- দুটোই ছিল বেশ কষ্টকর।’