তামিমের ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না : মাশরাফি

কব্জির ইনজুরিতে ভুগছেন বাংলাদেশি ওপেনার তামিম ইকবাল। চলমান এশিয়া কাপ থেকে ছিটকে পরার সম্ভাবনা রয়েই গেল তার। ম্যাচ শেষ তামিমের ইনজুরি নিয়ে কথা বলেছেন টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। মাশরাফির বিশ্বাস, তামিমের এশিয়া কাপ এখনো শেষ হয়ে যায়নি। গণমাধ্যমের সামনে তিনি জানান, ‘তামিমের আরেকবার স্ক্যান করাতে হবে। আমরা এখনো নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছি না। যদি আমরা তামিমকে না পাই তাহলে সেটা অবশ্যই বড় ধাক্কা হবে।

‘তবে আমাদের কয়েকজন প্লেয়ার আছে স্কোয়াডে। দেখা যাক কি হয়। সে এখনো টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে পড়েনি। আমাদের আরও দুই দিন অপেক্ষা করতে হবে, আরেকবার স্ক্যান করাতে হবে তামিমের হাতে। ছোট চিড় আছে, এটা নিশ্চিত। এখন আমাদের দেখতে হবে ইনজুরিটি কতটা খারাপ।’

উল্লেখ্য, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে বাম হাতে আঘাত পেয়ে ইনজুরিতে পড়েন তামিম। এরপর এক্সরে করানোর জন্য হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। পরবর্তীতে জানা যায়, তামিমের কব্জিতে চিড় ধরা পড়েছে, সম্পূর্ণ ফিটনেস ফিরে পেরে ছয় সপ্তাহর মত সময় লাগবে।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচের প্রথম ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে লঙ্কান পেসার সুরাঙ্গা লাকমলের বাউন্সারকে পুল করতে গিয়ে হাতে ব্যথা পান তামিম। ৩ বল সামলে ২ রান করে মাঠ ছাড়েন তখন।

এরপর হাতের ব্যথা নিয়েই শেষ উইকেটে সেঞ্চুরিয়ান মুশফিকুর রহিমকে সঙ্গ দিতে ক্রিজে নামেন তামিম ইকবাল। ভাঙ্গা হাত নিয়েই একটি বলে ব্যাট চালান তিনি। তার সহযোগিতায় দলের স্কোরে আরও ৩২ রান যোগ করেন মুশফিক।

একইসাথে সৃষ্টি করেছেন দারুণ এক উদাহরণ। শেষ উইকেটে হটাত তামিমের ব্যাটিংয়ে আসা নিয়ে দারুণ চমকে গেছে পুরো বাংলাদেশ দল। মাশরাফিও এর প্রশংসা করেছেন, তবে ঘটনার প্রবাহ ব্যাখ্যা করতে চাননি তিনি।

‘এই বিষয়টা নিয়ে আমি কিছু না বলি, তামিমই বলুক। ব্যাট করার সিদ্ধান্তটা তাকে নিয়ে হয়েছে। এখানে ঘটনাটা ওই ভাল বলতে পারবে।’

উল্লেখ্য, তামিম ইকবাল এই টুর্নামেন্টে এসেছেন হাতের ইনজুরি নিয়েই। মিরপুরে এশিয়া কাপের প্রস্তুতি চলাকালীন সময়ে আঙ্গুলে আঘাত পান তিনি। যার কারণে বেশ কিছুদিন অনুশীলন করতে পারেননি তিনি।

আঙ্গুলের ইনজুরি সমস্যা পুরোপুরি সমাধান হতে না হতেই নতুন করে ইনজুরির শিকার হলে টাইগার ওপেনার। বলা চলে, দুর্দান্ত ফর্মে থাকা এই তারকা ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে বড় বিপদে পড়বে বাংলাদেশ।