অসীম তৃপ্তি নিয়ে জীবনের পরিসমাপ্তিতে যাচ্ছি : অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, আমি ৫৬ বছর জনসেবা করেছি। এই জনসেবায় তৃপ্তি ছাড়া কিছু নেই। তিনি বলেন, সেই অসীম তৃপ্তি নিয়ে জীবনের সমাপ্তি ঘটাতে যাচ্ছি। হয়তো আরও কিছুদিন বেঁচে থাকব। কিন্তু এই তৃপ্তিতে কোনো ব্যত্যয় ঘটবে না। গতকাল রাজধানীর মিরপুর শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী। এই বক্তব্যের সময় কিছুটা আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন অশীতিপর আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, জীবনে হয়তো কোনো ত্রুটিবিচ্যুতি হয়েছে, কোনো কোনো বিচ্যুতি সংশোধনের সুযোগও হয়তো পেয়েছি। কিন্তু জনসেবা করার যে নির্মল তৃপ্তি তা থেকে কখনই বঞ্চিত হইনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, আমি আবুল মাল আবদুল মুহিত, কিছু কিছু ক্ষেত্রে অনুকরণীয় হয়ে থাকব। জীবনের বাকি সময়েই যেন আরও কিছু ‘মুহিত’কে আমি দেখে যেতে পারি সেই প্রত্যাশা করছি। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার শিক্ষিত মানুষ তৈরির কাজ করছে। মানুষকে শিক্ষিত করা গেলে দেশ এমনিতেই উন্নতির দিকে এগিয়ে যাবে। ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের চেয়ারম্যান সায়েম আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। অনুষ্ঠানে ৩ হাজার ৩১ জন শিক্ষার্থীকে বৃত্তিপত্র দেওয়া হয়। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ১৮ বছরের আগে বিয়ে দিয়ে মেয়েদের ভবিষ্যৎ নষ্ট করবেন না।

১৮ বছরের আগে মেয়েদের বিয়ে দেওয়া বা করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। তিনি বলেন, যুগোপযোগী শিক্ষা ছাড়া সুশিক্ষিত ও দক্ষ মানব সম্পদ গড়ে তোলা সম্ভব নয়। তাই সরকার ভিশন-২০২১ এবং ভিশন ২০৪১-কে সামনে রেখে সুশিক্ষিত ও দক্ষ মানব সম্পদ গড়ে তুলতে শিক্ষাকে দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার প্রধান হাতিয়ার হিসেবে বিবেচনায় নিয়েছে। এ জন্য সরকার বছরের প্রথম দিনেই বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের হাতে পাঠ্যপুস্তক, উপবৃত্তি প্রদান, শিক্ষা ক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার, মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, শিক্ষক প্রশিক্ষণ, কোচিং বাণিজ্য বন্ধে নীতিমালা, কারিগরি শিক্ষার প্রসার ও মাদ্রাসা শিক্ষা আধুনিকায়নসহ নানা কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। ফলে শিক্ষা ক্ষেত্রে সাফল্যের ধারা অবারিত হয়েছে।

তথ্যসূত্র: বিডি প্রতিদিন